• বিজেপি হঠাও, বেটি বাঁচাও স্লোগানে সরব তৃণমূল নেতৃত্ব 
    বর্তমান, 18 October 2020
  • নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বিজেপি দলিত ও কৃষক বিরোধী। তৃণমূল আগেই এই তকমা দিয়েছিল কেন্দ্রের শাসকদলকে। এবার রাজ্যের শাসকদল আওয়াজ তুলল, বিজেপি হঠাও, বেটি বাঁচাও। শনিবার দিনভর ফেসবুক, ট্যুইটারের মাধ্যমে এই স্লোগানকে হাতিয়ার করে বিজেপির বিরুদ্ধে সরব হলেন তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব। পুজো মিটলে বিজেপির বিরুদ্ধে আন্দোলনের ঝাঁঝ আরও বাড়বে, তাও বুঝিয়ে দিয়েছেন তাঁরা।

    উত্তরপ্রদেশের হাতরাসে দলিত তরুণীর উপর অত্যাচারের ঘটনা নিয়ে প্রতিবাদ হয়েছে দেশজুড়ে। কলকাতাতেও প্রতিবাদ মিছিল করেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর নির্দেশে পথে নেমেছেন দলের নেতা-কর্মীরা। রাজ্যজুড়ে আন্দোলন হয়েছে। যা ধারাবাহিকভাবে চলবে বলে জানিয়েছেন নেতৃত্ব। এই অবস্থায় এদিন তৃণমূলের তরফে ট্যুইট করে বলা হয়েছে, দেশের মেয়েদের সুরক্ষা দিতে ব্যর্থ কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও’ স্লোগান এখন পরিণত হয়েছে ‘বিজেপি হঠাও, বেটি বাঁচাও’ স্লোগানে। মহিলাদের উপর যে অত্যাচার চলছে, তার বিরুদ্ধেই আমাদের আওয়াজ। তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় ট্যুইট করে জানান, উত্তরপ্রদেশে দলিত তরুণীর উপর অত্যাচারের ঘটনায় নীরব থেকেছেন প্রধানমন্ত্রী এবং সে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। মহিলাদের নিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত। তৃণমূল সাংসদ কাকলি ঘোষদস্তিদার ট্যুইট করে বলেছেন, উত্তরপ্রদেশে যখন মহিলাদের উপর আক্রমণ চলছে, তখন মুখ্যমন্ত্রী ছবি তুলতে ব্যস্ত। কবে এর অবসান হবে? প্রধানমন্ত্রী কেন মহিলাদের নিরাপত্তায় গুরুত্ব দিচ্ছেন না, প্রশ্ন তুলেছেন কাকলি।

    বস্তুত, বিধানসভা ভোটের আগে হাতে মাত্র কয়েক মাস সময়। এই অবস্থায় তৃণমূল যেমন সংগঠনের ভিতকে মজবুত করার চেষ্টা করছে, তেমন এটাও প্রচারে তুলে ধরছে, বিজেপির আমলে দেশের মানুষ দুরবস্থার মধ্যে রয়েছেন। বিশেষত, দলিত-তফসিলি মানুষদের ঘরে ঘরে গিয়ে বিজেপির এই বিভাজনের নীতিকে তুলে ধরা হচ্ছে। 
  • Link to News (বর্তমান)