• ফোন এসেছিল কেন্দ্রের, দাবি গান্ধীরূপী অসুর কাণ্ডের মূল হোতা চন্দ্রচূড়ের
    হিন্দুস্তান টাইমস | ০৩ অক্টোবর ২০২২
  • গান্ধীরূপী অসুর বিতর্ক নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের ফোন এসেছিল। এমনই দাবি করলেন রুবি পার্কে অখিল ভারতীয় হিন্দু মহাসভার দুর্গাপুুজোর মূল উদ্যোক্তা চন্দ্রচূড় গোস্বামী। তাঁর দাবি, বিষয়টি নিয়ে আইনি পথে হাঁটা হবে।

    রুবি পার্কে অখিল ভারতীয় হিন্দু মহাসভার দুর্গাপুুজোয় যে গান্ধীরূপী অসুর নিয়ে বিতর্ক হচ্ছে, তা সপ্তমীর সন্ধ্যায় (যেদিন আবার গান্ধী জয়ন্তী) হিন্দুস্তান টাইমস বাংলায় সর্বপ্রথম প্রকাশিত হয়েছিল। তারপরই বাড়তে থাকে বিতর্ক। শুরু হয়েছে রাজনৈতিক টানাপোড়েন। ঘটনার নিন্দা করেছে বিজেপি। তৃণমূল কংগ্রেসের দাবি, শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করা হচ্ছে।

    তারইমধ্যে পুুজোর মূল উদ্যোক্তা চন্দ্রচূড়ের দাবি, পুজোর জন্য নিয়ম মেনে পুলিশ, দমকলের অনুমতি নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা নাগাদ পুজো মণ্ডপে আসে কসবা থানার পুলিশ কর্তারা। তাঁরা জোর করে অসুরের মূর্তিতে গোঁফ এবং চুল লাগিয়ে দেন। কসবা থানার পুলিশ কর্তারা দাবি করেন যে গান্ধীরূপী অসুর কাণ্ডের জেরে কেন্দ্রের তরফে প্রবল চাপ তৈরি করা হচ্ছে। চন্দ্রচূড়ের দাবি, পুলিশ কর্তারা জানান যে সেই পরিস্থিতিতে গান্ধীরূপী অসুরের মূর্তিতে চুল না লাগানো হলে প্রতিমা নিরঞ্জন করতে হবে।

    শুধু তাই নয়, তাঁর কাছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের ফোন এসেছিল বলেও দাবি করেছেন রুবি পার্কে অখিল ভারতীয় হিন্দু মহাসভার দুর্গাপুুজোর মূল উদ্যোক্তার। তাঁর দাবি, ফোনের ওপার থেকে কড়া ভাষায় জানানো হয় যে গান্ধীজিকে নিয়ে এরকম কোনও বিতর্কিত কাজ করা হবে না। এরকম কাজের জন্য গ্রেফতারও করা হতে পারে।

    তারইমধ্যে আবার মূর্তি পরিবর্তন করা নিয়ে প্রতিবাদে সরব হয়েছেন চন্দ্রচূড়। তিনি জানিয়েছেন, গান্ধীরূপী অসুরের চুল এবং গোঁফ লাগিয়ে দেওয়ার প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখানো হবে। পুজোর মণ্ডপে অবস্থান-বিক্ষোভ করা হবে বলে জানিয়েছেন রুবি পার্কে অখিল ভারতীয় হিন্দু মহাসভার দুর্গাপুুজোর মূল উদ্যোক্তার। তাঁর বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে অভিযোগ দায়ের হয়েছে। চন্দ্রচূড়-সহ পুজোর উদ্যোক্তারদের গ্রেফতারির দাবিতে সরব হয়েছেন কংগ্রেস নেতাকর্মীরা। কসবা থানার সামনে বিক্ষোভ দেখানো হয়েছে।
  • Link to this news (হিন্দুস্তান টাইমস)