• এক দিনে নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের প্রশ্নের মুখে কেন্দ্র
    ২৪ ঘন্টা | ২৪ নভেম্বর ২০২২
  • জি ২৪ ঘণ্টা ডিজিটাল ব্যুরো: প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগে স্বচ্ছতা আনার দাবির বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের সাংবিধানিক বেঞ্চ তাদের সিদ্ধান্ত সংরক্ষণ করেছে। শুনানির চতুর্থ দিনে সুপ্রিম কোর্টের বিভিন্ন কঠিন প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছে সরকারকে। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুসারে, অ্যাটর্নি জেনারেল আর ভেঙ্কটরামানি আদালতে নির্বাচন কমিশনার অরুণ গোয়েলের নিয়োগ সংক্রান্ত ফাইল উপস্থাপন করেন। ফাইল দেখে আদালত এই নিয়োগে সরকারের তাড়াহুড়োর বিষয়ে প্রশ্ন তোলেন।

    সাংবিধানিক বেঞ্চের সভাপতিত্বে থাকা বিচারপতি কে এম জোসেফ বলেন, ১৮ নভেম্বর আমরা এই বিষয়ে শুনানি করছিলাম, সেই দিনই নিয়োগের জন্য ফাইল পাঠানো হয়েছিল এবং সেই দিনই প্রধানমন্ত্রী নাম অনুমোদন করেছিলেন। এত তাড়াহুড়ো করার কী দরকার ছিল?

    বেঞ্চের অন্য সদস্য বিচারপতি অজয় ​​রাস্তোগিও প্রশ্ন তুলেছেন যে নির্বাচন কমিশনারের পদটি ১৫ মে থেকে শূন্য ছিল। তিনি প্রশ্ন তোলেন ১৫ মে থেকে ১৮ নভেম্বরের মধ্যে কী হয়েছিল। নাম পাঠানোর পর থেকে অনুমোদন পর্যন্ত মাত্র ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পুরো প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করা হয়।

    আইন মন্ত্রকের সুপারিশ করা চারটি নাম এবং এই পদে নিয়োগের জন্য একটি নাম (অরুণ গোয়েল) নির্বাচনের ভিত্তির প্রসঙ্গেও সুপ্রিম কোর্ট প্রশ্ন তুলেছে। আদালত বলেন, আপনি বলুন কেন আইন মন্ত্রক এই চারটি নাম বেছে নিয়েছে? আপনি কেন এই চার জনের মধ্যে নির্বাচনের তালিকা সীমাবদ্ধ রেখেছেন তাও প্রশ্ন। এরা ছাড়াও আরও অনেক সিনিয়র আমলা রয়েছেন।শুনানির সময়, অ্যাটর্নি জেনারেল বলেছিলেন যে এই নামগুলি শর্টলিস্ট করার জন্য বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে, যেমন কর্মকর্তাদের সিনিয়রিটি, অবসর গ্রহণ এবং নির্বাচন কমিশনে তাদের মেয়াদ। এই প্রক্রিয়াতেও কোনও ভুল হয়নি। এর আগেও ১২ থেকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে অ্যাপয়েন্টমেন্ট করা হয়েছে। এই চারটি নামও DoPT-এর ডাটাবেস থেকে নেওয়া হয়েছিল। এটি সকলেই দেখতে পারেন।'৬ বছরের মেয়াদও হবে না'

    এমনকী, সুপ্রিম কোর্ট এই প্রশ্নও করেছে, এই চার জনের মধ্যেও আপনি এমন লোকের নাম বেছে নিয়েছেন, যার নির্বাচন কমিশনার হিসেবে ছয় বছরও সময় পাবেন না। আমরা আশা করি আপনি এমনভাবে কাজ করবেন যাতে আপনি বিধিবদ্ধ নিয়মগুলি মেনে চলেন। কমিশনে ছয় বছরের মেয়াদ পান এমন আধিকারিকদের বেছে নেওয়া উচিত। আপনি যদি অনড় থাকেন যে কোনও নির্বাচন কমিশনার পূর্ণ মেয়াদ পাবেন না, তাহলে আপনি আইনের পরিপন্থী।সুপারিশে পাঠানো চারটি নামের মধ্যে কিসের ভিত্তিতে মাত্র একটি নাম নির্বাচন করা হলো, তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন আদালত। কারও বিষয়ে আমাদের কোনও সমস্যা নেই (অরুণ গোয়েল)। তার একটি চমৎকার একাডেমিক রেকর্ড ছিল। আমাদের উদ্বেগ নিয়োগের প্রক্রিয়া/ভিত্তি সম্পর্কে। তিনি এমন একজন ব্যক্তি যিনি ডিসেম্বরে অবসর নিতে চলেছেন। এই চার জনের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়সী একজনকে কিসের ভিত্তিতে বেছে নিলেন?শুনানির সময় অ্যাটর্নি জেনারেল আরও বলেন, নির্বাহী বিভাগের প্রতিটি ছোট কাজ পর্যালোচনা করা হবে কি না, সেই প্রশ্ন রয়েছে। প্রতিটি পদক্ষেপে সন্দেহ হলে নির্বাচন কমিশনের স্বাধীনতা ও মর্যাদা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এতে কমিশন সম্পর্কে জনগণের মতামতের উপরও খারাপ প্রভাব পড়বে। এই বিষয়ে বিচারপতি জোসেফ অ্যাটর্নি জেনারেলকে বলেন, কেউ যেন ভাবতে না পারে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি অথবা আমরা আপনাদের বিরুদ্ধে।
  • Link to this news (২৪ ঘন্টা)