• পাহাড় রাজনীতিতে নয়া মোড়! যাত্রা শুরু গ্লেনারিস কর্তার 'হামরো পার্টি'র
    এই সময় | ২৫ নভেম্বর ২০২১
  • এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: পাহাড়ে ফের এক নয়া চমক। আত্মপ্রকাশ ঘটল নতুন রাজনৈতিক দলের। এবার রাজনীতির ময়দানে বড় ভূমিকায় গ্লেনারিজ (Glenarys) কর্তা অজয় এডওয়ার্ডস (Ajoy Edwards)। বৃহস্পতিবার মিরিক থেকে নিজের নতুন দলের নাম ঘোষণা করলেন দার্জিলিঙের (Darjeeling) এই জনপ্রিয় রেস্তোরাঁর মালিক। তাঁর নতুন দলের নাম হামরো পার্টি। এদিন মিরিকে একটি সাংবাদিক বৈঠক করে দলের নাম ও লোগো প্রকাশ করেন অজয় এডওয়ার্ডস।

    পাহাড়ে বরাবরই পরিচিত মুখ অজয় এডওয়ার্ডস। গ্লেনারিজ রেস্তোরাঁর কর্তা হিসেবে ব্যবসায়ী মহলে বড় নাম অজয় এডওয়ার্ডস। তিনি একাধারে GNLF-এর দার্জিলিং ব্রাঞ্চের সভাপতি পদেও ছিলেন। দলের সভাপতি মন ঘিসিং-এর ঘনিষ্ট বন্ধ হিসেবে পরিচিত ছিলেন তিনি। তবে সম্প্রতি তাঁদের সম্পর্কে চিড় ধরে। ২১-এর বিধানসভা ভোটের আগে থেকেই টিকিট পাওয়া নিয়ে দলের সঙ্গে বিবাদ শুরু হয় অজয়ের। দলে তিনি গুরুত্ব পাচ্ছেন না বলেও ঘনিষ্ট মহলে প্রকাশ করেন। নির্বাচনের মিটতেই তিনি পরিবার সহ পাহাড়ের বাইরে চলে যান। পুজোর পর তিনি GNLF ত্যাগ করার কথা ঘোষণা করেন। পাশাপাশি নতুন রাজনৈতিক দল গড়বেন বলেও জানান অজয়।

    বৃহস্পতিবার মিরিক থেকে সাংবাদিক বৈঠক করে নতুন দলের নাম ঘোষণা করেন গ্লেনারিজ কর্তা। জানা গিয়েছে, মোট ১২২টি নামের প্রস্তাব এসেছিল এডওয়ার্ডসের নতুন দলের জন্য। তার মধ্যে থেকে চারটি নাম বেছে নেওয়া হয়। তার উপর ভোটাভুটি হয়। হামরো পার্টি নামটিতেই সবচেয়ে বেশি ভোট পড়ে। শেষ পর্যন্ত এই নামটিই চূড়ান্ত করা হয়। প্রকাশ করা হয় নতুন দলের লোগোও।

    পাহাড়ের রাজনীতির সমীকরণ বৃহস্পতিবার থেকে যে নতুন মোড় নিতে চলেছে তা বলাই বাহুল্য। এর আগে অনীত থাপার হাত ধরে নতুন দলের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে। অনেকেই বলছেন, পাহাড়ে সুভাষ ঘিসিং ও বিমল গুরুং অধ্যায় পার করে এবার নতুন সমীকরণ আনবে অনীত থাপা, অজয় এডওয়ার্ডসের মতো রাজনীতিবিদরা। আগে একটা সময়ে পাহাড়ের শেষ কথা ছিল GNLF ও গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার প্রধানরা। কিন্তু, এবার দু'টি নতুন দল আসতে চলেছে পাহাড়ে রাজনীতিতে। এদিকে অজয় দল ছাড়তেই GNLF-এ ভাঙন শুরু হয়ে গিয়েছে। একের পর এক কর্মী দল ছেড়ে অজয়ের সঙ্গে যোগ দিচ্ছেন বলে খবর। তবে এতদিন পাহাড়ে ছিলেন না অজয়। তিনি দিল্লি থেকে লাদাখ ঘুরতে গিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, 'পাহাড়ের মানুষ আমার সঙ্গে আছে। তারাই এখন আমার কাছে হাইকমান্ড। তাই তারা যেমন বলবে আমি তেমনভাবেই চলব। নতুন দল গড়ার আগে আমি কার্শিয়াং,কালিম্পং সহ ডুয়ার্সে গিয়েছি। নিজের সমর্থকদের সঙ্গে দেখা করেছি। তাদের সঙ্গে আলোচনা করেই জানতে পেরেছি তারা কী চাইছে।'
  • Link to this news (এই সময়)