• ২০১৩ শক্তিমিল গণধর্ষণে তিন অপরাধীর ফাঁসি বদলে যাবজ্জীবন বম্বে হাইকোর্টে
    ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস | ২৫ নভেম্বর ২০২১
  • রায়ে হাইকোর্টের পর্যবেক্ষণ, ‘আমরা কিছুতেই অস্বীকার করতে পারি না অপরাধের গভীরতা গোটা সমাজকে নাড়িয়ে দিয়েছিল। ধর্ষণ এমন একটা অপরাধ, যা নিগৃহীতাকে শারীরিক এবং মানসিকভাবে বিধস্ত করে তোলে। নিগৃহীতার সম্মানকে কলুষিত করে। তবে সাংবিধানিক আদালত কখনও জনমতের ভিত্তিতে রায় দিতে পারে না। যাবজ্জীবন সাজা আর মৃত্যুদণ্ড ব্যতিক্রম। মৃত্যু একজনের অনুশোচনা করার ক্ষমতা কেড়ে নেয়। কোনওভাবেই এটা প্রতিষ্ঠা করা যায় না অপরাধীদের জন্য মৃত্যুদণ্ড একমাত্র সাজা। সাড়া জীবন জেলে থেকে অপকর্মের জন্য অনুশোচনা করা অপরাধীদের একমাত্র সাজা।‘   

    এদিকে, পকসো আইনে শিশুদের সঙ্গে ওরাল সেক্স গুরুতর অপরাধ নয়। তাই অপরাধীর সাজার মেয়াদ ১০ বছর থেকে কমিয়ে ৭ বছর করে দিল এলাহাবাদ হাইকোর্ট। শিশুর সঙ্গে ওরাল সেক্স করার অভিযোগে ঝাঁসির নিম্ন আদালতে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন এক ব্যক্তি। তাঁকে ১০ বছরের কারাবাসের নির্দেশ দেয় আদালত। এরপরই নিম্ন আদালতের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে এলাহাবাদ হাইকোর্টে আঐপিল করেন দোষী ব্যক্তি।

    মামলার শুনানিতে এলাহাবাদ হাইকোর্টের বিচারপতি অনিল কুমার ওঝা বলেন, ‘দোষী ব্যক্তি শিশুর মুখে পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করেছিল, বিষয়টি পকসো আইন মোতাবেক ধারা ৫-৬ অথবা ৯ (এম)-এর আওতাধীন নয়। শিশুর মুখের মধ্যে পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করানো গুরুতর অপরাধ নয়। এই অপরাদ পকসো আইনের ধানা ৪ এর মধ্যে পড়ছে। সাজাও সেইভাবেই হবে।’ উল্লেখ্য, পকসো আইনের ধারা ৫ ও ৬-য়ে গুরুতর অপরাধের সাজা বিচার হয়।
  • Link to this news (ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস)