• তৃণমূলকে সরাতে পাশে সিপিএমকে চান শুভেন্দু
    এই সময় | ২৫ নভেম্বর ২০২১
  • এই সময়, খেজুরি: হার্মাদ মুক্তি দিবসের জোড়া সভা ঘিরে অশান্তি ছড়ালো খেজুরিতে। অন্যদিকে,সিপিএমকে পাশে থাকতে বলে নতুন বিতর্কের জন্ম দিলেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী।

    নন্দীগ্রামের জমি আন্দোলনের পর ২০১০ সালের ২৪ নভেম্বর খেজুরির দখল নিয়েছিল তৃণমূল। এরপর থেকে প্রতিবছর এই দিনটি হার্মাদ মুক্তি দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। নন্দীগ্রামে জমি আন্দোলনের শহিদ স্মরণের মতো বুধবার জোড়া সভার আয়োজন করেছিল তৃণমূল ও বিজেপি শিবির। যদিও তৃণমূল হার্মাদ মুক্তি দিবস পালন করলেও বিজেপি শিবির খেজুরিতে ভোট পরবর্তী হিংসার প্রতিবাদে সভার আয়োজন করে।

    সকালে বাঁশগোড়া বাজার থেকে ধোবাপুকুর পর্যন্ত পদযাত্রা ও সভার আয়োজন করে বিজেপি। আর বিকেলে ঘোলাবাড়ে সভা করে তৃণমূল। এদিন কামারদার কাছে ধোবাপুকুরে বিজেপির সভা থাকায় সকালে কামারদায় তৃণমূলের সভার অনুমতি দেয়নি পুলিশ।

    জোড়া সভা ঘিরে এদিন দিনভর বিক্ষিপ্ত অশান্তির ঘটনা ঘটে খেজুরিতে। বিজেপির পক্ষ থেকে তৃণমূলের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত হামলা এবং এক কর্মীকে অপহরণের অভিযোগ করে হেঁড়িয়া বোগা রাজ্য সড়কে কয়েকটি জায়গায় পথ অবরোধ করা হয়। তৃণমূলের পাল্টা অভিযোগ, তাদের সভাতে আসার পথে বিজেপির হাতে আক্রান্ত হন ৩ তৃণমূল সমর্থক। পুলিশ তাঁদের উদ্ধার করে।

    শুভেন্দু অধিকারী শিবির পরিবর্তন করলেও নন্দীগ্রামের জমি আন্দোলনের মতো খেজুরির হার্মাদ মুক্তি দিবসের কৃতিত্ব ছাড়তে রাজি নন। তা স্পষ্ট করে এদিন তিনি বলেন, '২০১০ সালে কামারদা বাজারে শুভেন্দু অধিকারী একা দাঁড়িয়ে তৃণমূলের পুর্নজন্ম দিয়েছিল।' তবে তিনি সিপিএম তাড়িয়ে হার্মাদ মুক্তির দাবি করলেও এদিন সিপিএমের প্রশংসা করে বলেন, 'তৃণমূলের থেকে এরা ভালো। খেজুরিতে বিজেপিকে জেতাতে সিপিএমের অনেকে সহযোগিতা করেছেন।' সে কারণে তৃণমূলকে হটাতে সিপিএমকে পাশে পেতে চান বলেও এদিন তিনি জানান। শুভেন্দুর এই প্রস্তাবের পাল্টা তৃণমূলের রাজ্য কমিটির অন্যতম সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ বলেন, 'সিপিএমের প্রতি পুরোনো প্রেম তাহলে জেগে উঠেছে? নন্দীগ্রাম আন্দোলনে সবাই মার খেলেন, অথচ উনি বাদ! বিজেপিতে যোগদানের বর্ষপূর্তিও হলো না এখনই সিপিএমের ভোট প্রয়োজন হয়ে পড়ল?'

    অন্যদিকে, শুভেন্দু অধিকারীর সিপিএমকে পাশে থাকার ডাককে ঘোলা জলে মাছ ধরার চেষ্টার সঙ্গে তুলনা করেছেন সিপিএমের জেলা সম্পাদক নিরঞ্জন সিহি। শুভেন্দু মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছেন বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

    এদিন বিকেলের সভাতে খেজুরি থেকে বিজেপিকে উৎখাত করার ডাক দেন তৃণমূল নেতৃত্বও। রাজ্যের মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র বলেন, 'আগে সিপিএমের হার্মাদ ছিল, এখন আর এক হার্মাদ এসেছে রং পাল্টে। ওদের নেতা পেশিশক্তি, অর্থশক্তি দিয়ে খেজুরিতে অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছেন।'
  • Link to this news (এই সময়)