• করোনা ৩ অধ্যাপকের উৎকণ্ঠা সবং কলেজে বন্ধ হল দু’টি বিভাগের অফলাইন ক্লাস 
    বর্তমান | ২৬ নভেম্বর ২০২১
  • সংবাদদাতা, মেদিনীপুর: সবং কলেজের একাধিক অধ্যাপকের রিপোর্টে করোনা পজিটিভ মিলেছে। এতে চিন্তা বেড়েছে সংশ্লিষ্ট মহলের। সিএমওএইচ ভুবনচন্দ্র হাঁসদা বলেন, বিষয়টা খোঁজ নিয়ে দেখা হবে। প্রসঙ্গত পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় করোনার প্রকোপ অতটা নেই বললেই চলে। এক প্রকার নিয়ন্ত্রণেই চলে এসেছে। হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যাও অনেকটাই কমে গিয়েছে। বেড়েছে সুস্থতার হার। কিন্তু এরই মধ্যে সবং সজনীকান্ত কলেজে তিন অধ্যাপকের রিপোর্ট করোনা পজিটিভ হওয়ায় উৎকণ্ঠা বেড়েছে কলেজ কর্তৃপক্ষের। এছাড়াও এক অধ্যাপকের আবার উপসর্গ দেখা দিয়েছে। ফলে চিন্তায় পড়েছেন অভিভাবকরা। আশঙ্কা, যদি তা ক্রমশ ছড়িয়ে পড়ে, তখন তার মোকাবিলা করাটাই চিন্তার বিষয়। কলেজ কর্তৃপক্ষ অবশ্য সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নিয়েছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে দু’টি বিভাগ। অফলাইনের পরিবর্তে চালু হয়েছে অনলাইন ক্লাস। সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে সংশ্লিষ্ট সবাইকে। ছুটি দিয়ে বুধবার পুরো কলেজ স্যানিটাইজ করা হয়েছে। 

    কলেজ খোলার পরই সংস্কৃত ও কেমিস্ট্রি বিভাগের তিন অধ্যাপকের রিপোর্টে করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়। এরপরই কলেজের এই দু’টি বিভাগে অফলাইন পঠনপাঠন বন্ধ করে দেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার থেকে দুই বিভাগেই অনলাইন ক্লাস শুরু হয়েছে। পড়ুয়াদের কলেজে আসতে বারণ করা হয়েছে। ওই অধ্যাপকদের হোম আইসোলেশনে থাকতে বলা হয়েছে। পড়ুয়াদের দিকেও কড়া নজর রাখতে বলা হয়েছে। 

    কলেজ অধ্যক্ষ তপন দত্ত বলেন, গত ২২ নভেম্বর কলেজ খোলে। পরের দিন জানা যায়, সংস্কৃত বিভাগের দুই অধ্যাপকের নমুনা পরীক্ষা করে রিপোর্টে পজিটিভ পাওয়া যায়। এরপরই কেমিস্ট্রি বিভাগের এক অধ্যাপকেরও করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়। তাঁদের তিনজনকেই হোম আইসোলেশনে থাকতে বলা হয়। কেমিস্ট্রি বিভাগের আরও এক অধ্যাপকের উপসর্গ দেখা দেওয়ায় তাঁকেও কলেজে আসতে বারণ করা হয়েছে। তাঁকে নমুনা পরীক্ষা করাতে বলা হয়েছে। ওই দিনই নোটিস দিয়ে ওই দু’টি বিভাগ বন্ধ করে দেওয়া হয়। জানিয়ে দেওয়া হয় অনলাইনে ক্লাস হবে। পুরো কলেজ স্যানিটাইজ করে এদিন থেকে অন্য বিভাগের ক্লাস শুরু হয়েছে। অধ্যক্ষ বলেন, ছাত্রছাত্রীদের কেউ অসুস্থ হয়নি। সেরকম কোনও রিপোর্ট আমাদের কাছে এখনও আসেনি। আমরা সচেতন আছি। যদি কারও কোনও উপসর্গ দেখা দেয়, তাহলে কলেজের কোভিড সেলে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষা করতে বলা হয়েছে। কলেজ পরিচালন সমিতির সভাপতি তথা মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া বলেন, আমি বাইরে আছি। খবর পাওয়ার পর কলেজের সঙ্গে যোগাযোগ করি। অধ্যক্ষ যাবতীয় যা ব্যবস্থা নেওয়ার নিয়েছেন। সরকারি নিয়ম মেনে সব কিছু করতে হবে। আমি অধ্যক্ষকে বলেছি কড়া নজর রাখতে হবে। বিশেষ করে ছাত্রছাত্রীদের দিকে ভালো করে খেয়াল রাখতে হবে। প্রয়োজনে ছাত্রছাত্রীদের র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষা করাতে হবে। কলেজ সূত্রে জানা গিয়েছে প্রথম বিভাগের প্রথম সেমিস্টারের অনলাইনেই ক্লাস হচ্ছে। কলেজে আসছেন কেবলমাত্র তৃতীয় ও পঞ্চম সেমিস্টারের ছাত্রছাত্রীরা। এঁদের অফলাইনে ক্লাস হচ্ছে। তৃতীয় সেমিস্টারে সোম ও বৃহস্পতি এবং পঞ্চম সেমিস্টারে মঙ্গল ও শুক্রবার ক্লাস নেওয়া হবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। আর প্রতি বুধবার কলেজ স্যানিটাইজ করা হবে। কিন্তু ওই দুই বিভাগে যেহেতু অফলাইনে ক্লাস হবে, তাই সোম থেকে শুক্র সবদিনই ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। 
  • Link to this news (বর্তমান)