•  শহরের সমস্ত পাম্পিং স্টেশনে বসছে নিকাশির স্বয়ংক্রিয় যন্ত্র জল-যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দিতে উদ্যোগ
    বর্তমান, 16 September 2020
  • নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: শহরের নিকাশি ব্যবস্থার উন্নয়নে এবার সব কটি পাম্পিং স্টেশনে স্বয়ংক্রিয় ক্লিনিং মেশিন বসানোর পরিকল্পনা নিল কলকাতা পুরসভা। কলকাতায় সব মিলিয়ে ৭৪টি পাম্পিং স্টেশন রয়েছে। তবে ধাপে ধাপে এই কাজ করা হবে। জানা গিয়েছে, এর মধ্যে ১৭টি স্টেশনে মোট ৩০টি এমন যন্ত্র লাগানো রয়েছে। কিন্তু তার মধ্যে বেশ কয়েকটি খারাপ। যেগুলি অকেজো, সেই স্বয়ংক্রিয় নিকাশি যন্ত্রগুলি জরুরি ভিত্তিতে বদলের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যন্ত্রের অভাবে জঞ্জাল পরিষ্কারের ক্ষেত্রে সমস্যা হচ্ছে। ফলে সাফাই কর্মীদের ম্যানুয়াল মেশিন দিয়েই সেসব পরিষ্কার করতে হচ্ছে। পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, সব পাম্পিং স্টেশনে এই যন্ত্র লাগানো হলে শহর কলকাতায় জমা জলের ছবি আক দেখা যাবে না।

    নানা জায়গার নোংরা জল এসে পড়ে পাম্পিং স্টেশনে। অটো-ক্লিনিং মেশিন বা স্বয়ংক্রিয় যন্ত্রের মধ্যে দিয়ে যা প্রবাহিত হয়। সেখানেই আটকে যায় ভারী ময়লা-আবর্জনা আটকে যায়। পরে সেগুলি বের করে অন্যত্র ফেলে দেওয়া হয়। এর ফলে নিকাশির জল যখন খাল বা নদীতে গিয়ে পড়ে, তখন তাতে সলিড ওয়েস্ট বা কঠিন বর্জ্য থাকে না।

    এই সমস্যা দূর করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন পুরমন্ত্রী তথা কলকাতা পুরসভার মুখ্য প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম। সম্প্রতি নিকাশি বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত তথা প্রশাসকমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য তারক সিং এনিয়ে বৈঠক করেন পুর কমিশনার বিনোদ কুমার ও অন্যান্য কর্তাদের সঙ্গে। সেখানেই ঠিক হয়েছে, অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে অটো-ক্লিনিং মেশিনগুলি হয় মেরামত, না হয় বদল করা হবে। দপ্তর সূত্রে খবর, মেরামতের সুযোগ কম। ফলে নতুন মেশিন কেনার দিকেই এগতে হবে পুরসভাকে। একেকটি যন্ত্রের দাম দুই থেকে আড়াই কোটি টাকা। বেশ কয়েক বছর আগে একটি বেসরকারি সংস্থা কয়েক কোটি টাকা খরচ করে বেশ কয়েকটি অটো-ক্লিনিং মেশিন কিনে দিয়েছিল। কিন্তু সেগুলি খুব একটা কাজে লাগেনি। পুরসভার পরিকল্পনা, এবার এন্টালি ওয়ার্কশপেই অটো-ক্লিনিং মেশিন তৈরি করা হবে। এপ্রসঙ্গে তারক সিং বলেন, পাম্পিং স্টেশনে জঞ্জাল আটকাতে এই যন্ত্র খুবই জরুরি। প্রয়োজনে পুরসভা নিজের উদ্যোগেই এই যন্ত্র তৈরি করবে। পাশাপাশি, আরও কয়েকটি নতুন পাম্প কেনারও সিদ্ধান্ত হয়েছে।

    ৭৪টি পাম্পিং স্টেশনের মধ্যে মাত্র ১৭টিতে এতদিন অটো-ক্লিনিং মেশিন ছিল। শুরুতে কেনা হয়েছিল ন’টি। তবে বর্তমানে একমাত্র মোমিনপুরে পাম্পিং স্টেশনে এই মেশিন সচল অবস্থায় রয়েছে। যে সংস্থা সেগুলি সরবরাহ করেছিল, তাকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। বর্তমানে সেই সংস্থাকে জরিমানা করার ভাবনাচিন্তা করছে পুরসভা।
  • Link to News (বর্তমান)