• একদম 'পরিষ্কার' ভোটের লক্ষ্য, বড় পদক্ষেপ নির্বাচন কমিশনের
    Aajtak | ০৪ এপ্রিল ২০২৪
  • লোকসভা ভোট যথাসম্ভব রাজনৈতিক হিংসামুক্ত রাখতে পদক্ষেপ করতে চলেছে জাতীয় নির্বাচন কমিশন। বুধবার চিফ ইলেক্টোরাল অফিস তথা সিইও দফতর থেকে সব জেলাগুলিকে এদিন নোটিস পাঠানো হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, পঞ্চায়েত ভোটে বিধানসভা আসন ধরে ধরে যেখানে যত হিংসার ঘটনা ঘটেছে, সে ব্যাপারে বিস্তারিত পরিসংখ্যান ও তথ্য পাঠাতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। অতীত অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা মোকাবিলা করতে চলেছে কমিশন। 

    প্রধান নির্বাচন কমিশনার রাজীব কুমার জানিয়েছেন যে এটি, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক যা নির্বাচন চক্রের প্রতি পাঁচ বছরে অনুষ্ঠিত হয়। তিনি অফিসারদের নির্দেশ দিয়েছেন কমিশন "একদম দাগহীন নির্বাচন" দিতে চায়। প্রতিবেশী রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির আধিকারিকদের মধ্যে নিরবচ্ছিন্ন সমন্বয় ও সহযোগিতার জন্য সংশ্লিষ্ট সমস্ত স্টেকহোল্ডারকে এক প্ল্যাটফর্মে আনতে ইসি এই সভা আহ্বান করেছিল। বৈঠকে আলোচনা করা অন্যান্য মূল বিষয়গুলির মধ্যে রয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর মোতায়েন, নিরাপত্তা কর্মীদের চলাচল ও পরিবহনের জন্য লজিস্টিক সহায়তা এবং নির্বাচনী প্রক্রিয়ার জন্য প্রভাব ফেলতে পারে এমন সীমান্ত এলাকায় ফ্ল্যাশপয়েন্ট সনাক্তকরণ ও পর্যবেক্ষণ। 

    কমিশন আন্তর্জাতিক সীমান্তের ওপারে মাদক, মদ, অস্ত্র ও বিস্ফোরক সহ নিষিদ্ধ জিনিসের চলাচল রোধে কঠোর নজরদারির গুরুত্বের ওপর জোর দিয়েছে। এটি সীমান্ত বরাবর মদ এবং নগদ চলাচলের জন্য প্রবেশ এবং প্রস্থান পয়েন্টগুলির সনাক্তকরণ এবং কিছু রাজ্যে অবৈধ গাঁজা চাষ রোধ করার জন্যও সাহায্য চাওয়া হয়েছে। কমিশন অরুণাচল প্রদেশ, ছত্তিশগড় এবং মহারাষ্ট্র সহ ১১টি রাজ্যের প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ অঞ্চলে পোলিং টিমকে ফেরি করার জন্য ভারতীয় বিমান বাহিনী এবং রাজ্যের বেসামরিক বিমান চলাচল বিভাগের সহায়তা পর্যালোচনা করেছে। 

    রাজনৈতিক কর্মী এবং নির্বাচনী প্রার্থীদের হুমকি রুখতে, বিশেষত ছত্তিশগড় এবং জম্মু ও কাশ্মীরের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মতো রাজ্যে সুরক্ষার জন্য পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। হাইব্রিড বৈঠকে কেন্দ্রীয় বাহিনীর শীর্ষ আধিকারিক, কোস্টগার্ড, রাজ্যের মুখ্য সচিব এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রক ও রেলের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। পর্যবেক্ষকদের মতে, এর অর্থ স্পষ্ট। ইলেকশন কমিশন ভোট অবাধ ও সুষ্ঠু করার জন্য যথাসম্ভব চেষ্টা করছে। এই নির্দেশের পর ধরে নেওয়া যেতে পারে, পঞ্চায়েত ভোটে যে সব এলাকায় অধিকতর হিংসার ঘটনা ঘটেছিল সেখানে কেন্দ্রীয় বাহিনীর মোতায়েন বেশি হবে। ওই সব বুথে সব রাজনৈতিক দলের এজেন্ট যাতে থাকতে পারেন তা সুনিশ্চিত করবে কমিশন। 

     
  • Link to this news (Aajtak)