• Election Duty: স্কুল খুলতে না খুলতেই পুরভোটে ডাক শিক্ষকদের, শিক্ষাব্যবস্থার ক্ষতি নিয়ে উঠছে প্রশ্ন
    আজকাল | ২৫ নভেম্বর ২০২১
  • আজকাল ওয়েবডেস্ক: করোনা, লকডাউন, বিধিনিষেধের জেরে প্রায় দু’বছর ধরে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে পড়াশোনার। তবে এখন পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ায় রাজ্যজুড়ে খোলা হয়েছে স্কুল-কলেজ। তা আবার সবার জন্য নয়, নবম থেকে দ্বাদশ, এই চারটি শ্রেণি স্কুলে গিয়ে ক্লাস করতে পারছে। অন্যদিকে, কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রেও সব পড়ুয়াদের ডাকা হচ্ছে না। এরই মধ্যে বেজেছে পুরভোটের ঘণ্টা। কলকাতা পুরসভার ভোটের কাজেই ডাক পড়ল শিক্ষকদের। তবে এই অবস্থায় শিক্ষকদের নির্বাচনের কাজে যেতে হলে, আবারও ক্ষতির মুখে পড়বে শিক্ষাব্যবস্থা।  

    কয়েকজন শিক্ষক জানিয়েছেন, জেলা প্রশাসনের থেকে চিঠি এসেছে কলকাতা পুরসভা ভোটের কাজে প্রশিক্ষণ নেওয়ার জন্য। তবে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পরে খুলেছে স্কুল। তাই পড়াশোনার পাশাপাশি স্কুলের নিয়মিত স্যানিটাইজেশন-সহ নানা কাজ থাকছে তাঁদের। এমনকী অতিরিক্ত ক্লাসও নিতে হচ্ছে। এরই মধ্যে শিক্ষকদের নির্বাচনের কাজে যেতে হলে ব্যাপক ক্ষতি হবে পড়াশোনার বলে দাবি শিক্ষকদের একাংশের। এরপরই তাঁরা প্রশ্ন তোলেন যে, এই ক্ষতি পূরণ করবে কে?

    উত্তর ২৪ পরগনার মথুরাপুরের দত্তের চক হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক পঞ্চানন ময়রা বলেন, ‘চিঠিতে লেখা রয়েছে প্রথমে তিন দিন প্রশিক্ষণ হবে। শনিবার হবে প্রথম প্রশিক্ষণ। আর এই দিনই স্কুলে অভিভাবকদের ডাকার কথা রয়েছে। তাঁদের ছেলেমেয়েরা কেমন পড়াশোনা করছে, কী কী অসুবিধে হচ্ছে, সে সব নিয়ে আলোচনা করার কথা। তবে ওইদিন স্কুলে থাকতে পারব না। আমার ভোটের কাজ করতে কোনও অসুবিধা নেই। বিধানসভা নির্বাচনেও কাজ করেছি। তবে এই পরিস্থিতিতে স্টুডেন্টদের নিয়ে ভাবছি।’ 

    আবার অনেক শিক্ষকের অভিযোগ, ‘কলকাতা পুরসভার ভোটে শুধু কলকাতা থেকেই তো শিক্ষকদের নেওয়া যেতে পারত। কারণ ওইদিন স্কুল ছুটি থাকার কথা। ফলে সেখানকার শিক্ষকরা নির্বাচনের কাজ করতে পারতেন। আমাদের মতো স্কুলের শিক্ষকদের ডাক পাঠানোয় পঠনপাঠন বন্ধ করে ভোটের কাজে যেতে হবে।’
  • Link to this news (আজকাল)