• ‘বাংলা সহায়তা কেন্দ্রে'র পরিষেবায় কোটির মাইলফলক, আপ্লুত মমতা
    এই সময় | ২৫ নভেম্বর ২০২১
  • এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: পশ্চিমবঙ্গের মানুষকে সাহায্য করার জন্য বাংলা সহায়তা কেন্দ্র খুলেছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। গত বছরের ১২ অক্টোবর নির্দেশিকা জারি করে বাংলা সহায়তা কেন্দ্র খোলা হয়েছিল রাজ্যের বিভিন্ন জেলায়। বিনামূল্যে সাধারণের কাছে সরকারি পরিষেবা পৌঁছে দেওয়ার জন্য ওই কেন্দ্রগুলি গড়ে তোলার নির্দেশ দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এক বছরের মধ্যেই ওই প্রকল্প চূড়ান্ত সাফল্য পেয়েছে। এক কোটিরও বেশি মানুষ BSK -এর পরিষেবা পেয়েছেন, বৃহস্পতিবার সে কথা ঘোষণা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর কথায়, 'বাংলা সহায়তা কেন্দ্রের সুবিধা পেয়েছেন রাজ্যের এক কোটি বাসিন্দা। বিষয়টি আপনাদের সঙ্গে ভাগ করে নিতে পেরে খুবই আনন্দিত আমি। তৃণমূল স্তরে মানুষকে সাহায্য করার জন্য তিন হাজার ৫৬১টি BSK খোলা হয়েছিল। এই মাইলস্টোন ছুঁতে পারার জন্য সকলকে অভিনন্দন!

    তথ্যমিত্র কেন্দ্রের ধাঁচেই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় নয়া সহায়তা কেন্দ্র চালু করেছিল রাজ্য সরকার। সবকটি BSK -এর উপর নজর রাখে নবান্ন। আসলে সরকারি সমস্ত সুযোগ সুবিধা অনলাইনে পাওয়া যায় এখন। কিন্তু, রাজ্যের অনেক জায়গাতেই সাইবার ক্যাফে নেই। স্মার্টফোনও নেই বহু মানুষের কাছে। অনেকের বাড়িতে ইন্টারনেট পরিষেবা নেই আজও। এমতাবস্থায় মানুষের সহায়তা করে BSK। জেলা সদর, মহকুমা সদর, ব্লক সদরেও একাধিক সহায়তা কেন্দ্র রয়েছে। রাজ্যের সরকারি হাসপাতাল, গ্রন্থাগার কিংবা পঞ্চায়েত অফিসে ওই সহায়তা কেন্দ্র গড়ে তোলা হয়েছে।

    যদিও চলতি বছরের জুলাই মাসে BSK এর পরিকাঠামো নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী। জেলাশাসক এবং মিউনিসিপ্যাল কমিশনারদের এ নিয়ে কড়া চিঠিও দিয়েছিল নবান্ন। কেন BSK -এর পরিকাঠামোর উপর নজরদারি চালানো হচ্ছে না, সে নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিল নবান্ন।রাজ্য সরকারের তরফ থেকে আধিকারিকদের নির্দেশ দিয়ে বলা হয়েছিল, পরিকাঠামো জনিত সমস্যাগুলি চটজলদি মিটিয়ে ফেলতে। বাংলা সহায়তা কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত অনেক আধিকারিক অন্যত্র কাজ করছিলেন। তাঁদের ফিরিয়ে আনার কথাও বলা হয়েছিল।

    BSK -এর সম্পর্কে আধিকারিকদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার কথাও বলা হয়েছিল। প্রত্যেক রিভিউ মিটিংয়ে BSK সম্বন্ধীয় আলোচনা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। যাঁদের বাংলা সহায়তা কেন্দ্রগুলি উপস্থাপনযোগ্য হয়, সেদিকেও নজর রাখার কথা বলা হয়েছিল। তবে বর্তমান সাফল্য থেকে এটা স্পষ্ট যে নবান্নের কড়া নজরদারিতে মানুষের পাশে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছে বাংলা সহায়তা কেন্দ্রগুলি।
  • Link to this news (এই সময়)