• রাজধানীর দূষণ-চিত্র বিশ্বে কী বার্তা দিচ্ছে?
    এই সময় | ২৫ নভেম্বর ২০২১
  • নয়াদিল্লি: রাজধানীর দূষণ নিয়ে ফের শীর্ষ আদালতের ভর্ৎসনার মুখে সরকার। শীর্ষ আদালতের স্পষ্ট বক্তব্য, রাজধানীর বাতাসের খারাপ মান নিয়ে বৈজ্ঞানিক সমীক্ষা প্রয়োজন, পূর্ব নির্ধারিত কোনও পদক্ষেপে লাভ হবে না। সেই সঙ্গে আদালতের প্রশ্ন, 'এই তো রাজধানীর অবস্থা! দেখুন, বিশ্বের কাছে আমরা কী বার্তা দিচ্ছি? হাতের কাছে যা পরিসংখ্যান রয়েছে, তার ভিত্তিতে অবস্থা আগে থেকে বুঝে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিন, যাতে দূষণ চিত্র আরও খারাপ না হয়। এখন তো সুপার কম্পিউটর রয়েছে...তার ভিত্তিতে গাণিতিক মডেল তৈরি করুন।'

    দিল্লির দূষণ-চিত্র নিয়ে এই নিয়ে তৃতীয় সপ্তাহ শুনানি চলছে। দিওয়ালির পর দিল্লির দূষণ পরিস্থিতি যা হয়েছিল, তার থেকে এখন পরিস্থিতি একটু উন্নত হলেও খুব একটা বদল আসেনি। বুধবার সকালেও দিল্লির 'এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স' (AQI) খুব খারাপ ছিল। আদালতের নির্দেশ, দিল্লির ক্ষেত্রে গ্রহণযোগ্য একিউআই মাত্রা কত, তা নির্দিষ্ট করে দিতে হবে। রাজধানীর দূষণ কমাতে পূর্ব নির্ধারিত কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ করলে চলবে না, বরং বৈজ্ঞানিক পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে দূষণ নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা করতে হবে।

    কেন্দ্রের তরফে সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতার দাবি ছিল, 'আমরা জরুরি কয়েকটি পদক্ষেপের কথা ভেবেছি। সেগুলি দীর্ঘমেয়াদি। সেগুলো ধাপে ধাপে প্রকাশ করব।' মামলাকারীর আইনজীবী বিকাশ সিং ফসলের অবশিষ্টাংশ পোড়ানো নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তাঁর দাবি ছিল, কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দিয়ে ফসলের অবশিষ্টাংশ পোড়ানোর ঘটনা কমানো যেতে পারে। জবাবে শীর্ষ আদালতের স্পষ্ট বক্তব্য, 'আমরা আলোচনা করতে পারি মাত্র, কিন্তু নাড়াপোড়া বন্ধ করতে আমলারা কী করছেন? তাঁরা কেন চাষের খেতে গিয়ে কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে বৈজ্ঞানিকদের সাহায্যে কোনও সমাধান বের করছেন না?'
  • Link to this news (এই সময়)