• এবার ভলভো বাসে কলকাতা থেকে ঝাড়গ্রাম-পুরুলিয়া-আসানসোল
    এই সময় | ২৫ নভেম্বর ২০২১
  • এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: কিষেনজির দশম মৃত্যুবার্ষিকী ছিল ২৪ নভেম্বর। আর ঘটনাচক্রে সে দিন থেকেই প্রতীকী উদ্বোধন হল কলকাতা থেকে ঝাড়গ্রাম (Jhargram), পুরুলিয়া (Purulia) যাওয়ার অত্যাধুনিক ভলভো বাস পরিষেবার। জঙ্গলমহলের প্রতিনিধি বীরবাহা হাঁসদার উপস্থিতিতে উদ্বোধনের মঞ্চ থেকে রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim) বলেন, ‘জঙ্গলমহল আর তেমন নেই যেমন দেখে বড় হয়েছে বীরবাহারা।’

    এ দিন দক্ষিণ কলকাতার কসবা এলাকায় ২ নম্বর পরিবহণ ভবন থেকে নৈশ বাস পরিষেবার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন পরিবহণ মন্ত্রী। চারটি বাস কলকাতা থেকে বাসগুলি ছাড়বে আসানসোল, পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম এবং ফরাক্কার উদ্দেশে। আবার একই ভাবে ওই শহরগুলি থেকে ফিরবে কলকাতায়। সব বাসই ছাড়বে রাতে। সারারাত চলবে। ভোরে পৌঁছে যাবে গন্তব্যে। SBSTC বা দক্ষিণবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ নিগম বেশ কয়েকটি রুটে নৈশ বাস পরিষেবা চালু করল। কসবা ডিপো থেকে বাসগুলির উদ্বোধন করা হয়। মন্ত্রী জানান এ গুলি কলকাতা থেকে ছেড়ে কৃষ্ণনগর, ঝাড়গ্রাম, কোলাঘাট, ডেবরা, লোধাশুলি, পুরুলিয়া, বর্ধমান, দুর্গাপুর, আসানসোলের মানুষকে কলকাতার সঙ্গে গেঁথে ফলবে।

    মন্ত্রী দাবি করেন, উন্নয়নের জোয়ারে জেলার মানুষ এখন অনেক বেশি কলকাতায় আসেন। আবার কলকাতার কর্মী আধিকারিকেরা থাকেন জেলায় জেলায়। অনেককে প্রায়ই নানা কাজে ছুটতে হয় জেলায়। আগের থেকে অনেক বেশি সরকারি কর্মী আধিকারিক জেলায় যান নানা কাজে। তাঁদের হাতে সময় খুব কম। সব সময় ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করার সময় থাকে না। তাই এই বাস পরিষেবা অনেকখানি উপকার করবে বলে মনে করছেন পরিবহণ দফতরের আধিকারিকেরা।

    ফিরহাদ বলেন, ‘রাতে বাসে চেপে সকালে কলকাতা পৌঁছে যাবেন। অথবা সারাদিনে কলকাতার কাজ সেরে রাতের বাসে চড়ে ভোরের মধ্যে পৌঁছে যাবেন জেলায়। এতে সময় অনেকটা বাঁচবে।’ বাস পরিষেবা চালু হওযায় খুশি পুরুলিয়ায় কর্মরত কলকাতার বহু মানুষ। এক কলেজ শিক্ষক বলেন, ‘করোনা আবহে একের পর এক ট্রেন অনিয়মিত হয়ে পড়েছে। রেলের খাম খেয়ালিপনায় আমরা উদ্বিগ্ন। এ দিকে নভেম্বর মাস থেকে চালু হয়ে গিয়েছে কলেজ। নৈশ বাস পরিষেবা চালু হলে আমাদের খুবই উপকার হয়।’

    পরিবহণ দফতরের দেওয়া হিসেব অনুযায়ী এই বাসের ন্যূনতম ভাড়া ৫০ টাকা। তবে শেষ গন্তব্য অবধি যেতে অনেকটাই খরচ হবে। কলকাতা থেকে পুরুলিয়া যেতে খরচ হবে ৫৯০ টাকা, আসানসোল যেতে ৫০০ টাকা, ঝাড়গ্রাম যেতে খরচ হবে ৩৯০ টাকা, ফরাক্কা যেতে গুনতে হবে ৬৬০ টাকা ভাড়া। একই ভাড়া লাগবে কলকাতা ফেরার পথেও।

    পুরুলিয়ার বাস কলকাতা থেকে ছাড়বে রাত ১০টায়। পুরুলিয়া থেকেও ছাড়বে রাত ১০টায়। ফরাক্কা-কলকাতা বাস দু’টি দুই শহরেই ছাড়বে রাত ৯ টায়। ঝাড়গ্রাম যেতে হলে কলকাতা থেকে বাস ধরতে হবে বিকেল ৫টায়, ঝাড়গ্রাম থেকে সকাল ৭টায়। আসানসোলের জন্য কলকাতা থেকে বাস ছাড়বে সকাল ৮টায়, আসানসোল থেকে দুপুর ২টোয়। এর আগে ওয়ান স্টপ বাস পরিষেবা চালু করেছিল সরকার। কিন্তু পুরো রাস্তা যাওয়ার মতো যাত্রী তেমন হয়নি। ফলে সে পরিষেবা তেমন সাফল্য পায়নি। এ বার আর একটি স্টপেজ নয়। মাঝপথেও যাত্রী ওঠানামা করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে ভাড়া ৫০ টাকা। ফলে এই রুটে সাফল্য আসবে বলেই মনে করছে পরিবহণ দফতর।
  • Link to this news (এই সময়)