• Tripura Election: পুনর্নির্বাচনের দাবি তৃণমূল-সিপিএমের! সন্ত্রাস হয়েছে, ‘স্বীকার’ বিজেপি বিধায়কেরও
    আজকাল | ২৬ নভেম্বর ২০২১
  • আজকাল ওয়েবডেস্ক: বজ্র আঁটুনিই সার, আদতে ফস্কা গেঁরো। পুর নির্বাচনে আগরতলার প্রত্যেকটা বুথেই অশান্তির আশঙ্কা করে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছিল। তাতে কোনও লাভ হয়নি। লাভ হয়তো হয়েছে, তবে তা শাসকদল বিজেপির। কারণ আগাগোড়া মার খেয়ে গেলেন তৃণমূল এবং সিপিএমের প্রার্থী, কর্মীরা। ভাঙা হল তাদের দলীয় কার্যালয়ও। এমতাবস্থায় আগরতলার সব বুথে পুনর্নির্বাচন দাবি করেছে সিপিএম। সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক জিতেন্দ্র চৌধুরী বলছেন, কেন্দ্রীয় বাহিনীয় সামনেই ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে বুথ দখল করে ছাপ্পা ভোট দিয়েছে বিজেপি। তাঁর আপত্তি ৮ নম্বর ওয়ার্ড নিয়েও। 

    অন্যদিকে তৃণমূল নেতা রাজীব ব্যানার্জির দাবি, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মানেনি বিপ্লব দেবের সরকার। রাজ্য নির্বাচনের কাছে আগরতলায় পুরভোট বাতিল করার দাবি জানাবেন বলে জানিয়েছেন রাজীব। 

    ভোটে সন্ত্রাসের অভিযোগ করলেন এমনকী ত্রিপুরার এক বিজেপি বিধায়ক। তিনিই ‘স্বীকার’ করলেন, সন্ত্রাস করেছে বিজেপিই। বিধায়ক সুদীপ রায়বর্মণ বলছেন, “ভোট করানো হয়েছে বহিরাগতদের দিয়ে। বাধা দেওয়া হয়েছে ভোটারদের।” মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবকে উদ্দেশ করে তাঁর বার্তা, “মুখ্যমন্ত্রী ভয় দেখিয়ে ভোট না করালেই পারতেন। মানুষের অভিশাপ কুড়োতে হচ্ছে।  নেতৃত্বের শিশুসুলভ আচরণের জন্য দলের বদনাম হচ্ছে।” 

    ভোট উপলক্ষে আগে থেকেই উত্তপ্ত হয়ে উঠলেও বৃহস্পতিবার ভোটের দিন তা চূড়ান্ত আকার নেয়। বিভিন্ন জায়গায় প্রার্থীদের মারধরের পাশাপাশি পোলিং এজেন্টদের বুথ থেকে বলপ্রয়োগ করে বের করে দিয়ে বুথ দখলের অভিযোগও উঠেছে শাসকদল বিজেপির বিরুদ্ধে। তীব্র নিন্দা করে প্রাক্তন সাংসদ ও রাজ্য তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, 'রাজ্য সরকারের স্বৈরাচারী মনোভাবেরই প্রতিফলন এটা। একদিকে ভোটের দিন বিরোধীদের ওপর হামলা করে সন্ত্রাসের বাতাবরণ তৈরি করে সাধারণ মানুষকে ভয় দেখানো চলছে অন্যদিকে প্রতিবাদ জানাতে গেলে বাধা দিচ্ছে।'     

     
  • Link to this news (আজকাল)