• মিলছে না যাত্রী, লোকসান নিয়েই চলছে টয় ট্রেনের জঙ্গল টি সাফারি
    বর্তমান | ২৬ নভেম্বর ২০২১
  • সংবাদদাতা, শিলিগুড়ি: যাত্রীর অভাবে ধুঁকছে হেরিটেজ টয় ট্রেনের জঙ্গল টি সাফারি। বৃহস্পতিবার মাত্র দু’জন যাত্রী নিয়ে শিলিগুড়ি জংশন স্টেশন ও রংটংয়ের মধ্যে জঙ্গল টি সাফারি চলে। শনিবার ও রবিবার কিছু সংখ্যক যাত্রী হলেও সপ্তাহের বাকি দিনগুলিতে যাত্রী হচ্ছে না। ফলে দার্জিলিং হিমালয়ান রেলওয়েকে (ডিএইচআর) জঙ্গল টি সাফারি চালিয়ে বিপুল ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছে। জয় রাইডগুলি বাদ দিলে টয় ট্রেনের বাকি পরিষেবাতেও যাত্রী হচ্ছে না। এমনটাই জানিয়েছেন ডিএইচআরের ডিরেক্টর অরবিন্দকুমার মিশ্র। কার্শিয়াং-মহানদীর মধ্যে সম্প্রতি চালু হয়েছে টয় ট্রেনের নতুন পরিষেবা হিমকন্যা। মূলত পুজোর পর্যটন মরশুমের কথা মাথায় রেখে রেলের এই উদ্যোগ। প্রথম প্রথম কিছু যাত্রী হলেও এখন প্রত্যাশামতো যাত্রী মিলছে না। হেরিটেজ টয় ট্রেনের জনপ্রিয়তা বাড়াতে রেল এ ধরনের উদ্যোগ নিয়েছিল। কিন্তু, যাত্রীর অভাবে সেই উদ্যোগও মুখ থুবড়ে পড়েছে।  এদিকে, ধসে লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় এনজেপি-দার্জিলিংয়ের মধ্যে টয় ট্রেন পরিষেবাও দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ ছিল। আজ, শুক্রবার থেকে সংক্ষিপ্ত রুটে সেই পরিষেবা চালু হচ্ছে। ডিএইচআরের ডিরেক্টর বৃহস্পতিবার বলেন, প্রবল বর্ষণে পাহাড়ে ধস নামায় ৫৫ নম্বর জাতীয় সড়কের অনেক জায়গা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাতে কিছু জায়গায় টয় ট্রেনের লাইন নষ্ট হয়ে গিয়েছে। এখনও তা মেরামত করে ওঠা যায়নি। জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে মেরামতের কাজ চলছে। সে কারণে দীর্ঘদিন ধরে এনজেপি-দার্জিলিংয়ের মধ্যে টয় ট্রেন পরিষেবা বন্ধ আছে। কিন্তু, মানুষের চাহিদার কথা মাথায় রেখে আমরা কার্শিয়াং থেকে দার্জিলিংয়ের মধ্যে এই পরিষেবা শুক্রবার থেকে চালু করতে যাচ্ছি। পর্যটকদের দিকে তাকিয়ে পুজোর আগেই টয় ট্রেনের নতুন পরিষেবা চালু করে ডিএইচআর। ভিস্তাডোম কোচে জঙ্গল টি সাফারি ছিল তারমধ্যে অন্যতম। কিন্তু, ভরা পর্যটন মরশুমেও এই পরিষেবায় প্রত্যাশামতো যাত্রী মেলেনি। এক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষের পরিকল্পনার ত্রুটি দেখছে ওয়াকিবহাল মহল। তাদের বক্তব্য, পর্যটকদের উপরই টয় ট্রেনের জনপ্রিয়তা বা চাহিদা বৃদ্ধির দিকটি নির্ভর করে। কিন্তু, এক্ষেত্রে দেশ- বিদেশের পর্যটকদের কাছে টয় ট্রেনের নতুন পরিষেবা নিয়ে সেভাবে কোনও প্রচার নেই। বিপুল অর্থ ব্যয় করে  টয় ট্রেনকে জনপ্রিয় করার জন্য ‘ঘুম উৎসব’ চলছে। কিন্তু, তাতেও সাড়া মিলছে না। রেল কর্তৃপক্ষের পরিকল্পনার ভুলে টয় ট্রেনকে জনপ্রিয় করার প্রতিটি উদ্যোগ ব্যর্থ হচ্ছে। শিলিগুড়ি জংশন-রংটংয়ের মধ্যে শনি ও রবিবার করে জঙ্গল টি সাফারি চালু করা হয়। তাতেও প্রথমদিকে যাত্রী হচ্ছিল না। কিন্তু, পুজোর মরশুম শুরু হতেই যাত্রীর সংখ্যা বাড়তে থাকে। সেটা দেখে জঙ্গল টি সাফারি প্রতিদিন চালানো সিদ্ধান্ত নেয় রেল। কিন্তু, প্রত্যাশামতো যাত্রী হয়নি, এখনও হচ্ছে না। এ নিয়ে ট্যুর অপারেটরদের বক্তব্য, ট্রয় ট্রেনের যেকোনও পরিষেবা জনপ্রিয় করতে যে ধরনের প্রচার দরকার হয়, রেলের তরফে তা করা হয়নি। পর্যটন ব্যবসায়ী সম্রাট সান্যাল বলেন, জঙ্গল টি সাফারি শনি ও রবিবার করে চালানোর পাশাপাশি ভাড়া কিছুটা কম করার প্রস্তাব দিয়েছিলাম আমরা। ভাড়া কমানো সম্ভব না হলে এই ভাড়ার সঙ্গে যাত্রীদের খাবারের  ব্যবস্থা যোগ করা প্রস্তাব ছিল আমাদের। এখনও তা মানা হয়নি। ডিএইচআর ডিরেক্টর বলেন, ঘুম উৎসব শেষ হলে আমরা আলোচনায় বসব। গোটা বিষয়টি পর্যালোচনা করে দেখা হবে  কোথায় কী ত্রুটি রয়েছে। সেই সঙ্গে বিভিন্ন স্তরের প্রস্তাব খতিয়ে দেখে পদক্ষেপ করব।
  • Link to this news (বর্তমান)