• বিধায়ক শ্রীরূপার নামে ‘সন্ধান চাই’ ফেস্টুন নিয়ে রাস্তায় নামল জেলা যুব তৃণমূল কং
    বর্তমান | ২৬ নভেম্বর ২০২১
  • নিজস্ব প্রতিনিধি, মালদহ: ইংলিশবাজারের বিজেপি বিধায়ক শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরীর ‘সন্ধান চাই’ লেখা ফেস্টুন নিয়ে রাস্তায় নামল তৃণমূল। বৃহস্পতিবার তৃণমূলের ছাত্র এবং যুব সংগঠনের তরফে ইংলিশবাজার শহরে বিধায়কের অনুপস্থিতি নিয়ে বিক্ষোভও দেখানো হয়। বিক্ষোভের পাশাপাশি এদিন তৃণমূলের ছাত্র-যুবরা ইংলিশবাজার থানায় বিধায়কের নামে ‘মিসিং ডায়েরি’ করেন। ঘটনায় মালদহের রাজনৈতিক মহলে শোরগোল পড়েছে। পুরো ঘটনায় বিজেপির মুখ পুড়েছে বলে গেরুয়া শিবিরের একাংশই মনে করছে। তাদের মতে, বিধায়কের অনুপস্থিতির বিষয়টিকে ইস্যু করে তৃণমূল আসন্ন পুর নির্বাচনে বাজার মাত করতে চাইবে। তৃণমূলের ছাত্র এবং যুব সংগঠনের তরফে শেখ অমিত, অর্পণ সেন বলেন, ভোটে জয়লাভের পর থেকে বিধায়ক ইংলিশবাজারবাসীকে এড়িয়ে চলছেন। বিরোধী হলেও তিনি আমাদের সবার বিধায়ক। বিভিন্ন প্রয়োজনে তাঁকে শহরের ঠিকানায় পাওয়া যাচ্ছে না। ফোন করলেও তিনি তা রিসিভ করেন না। ফলে সাধারণ মানুষ হয়রানির শিকার হচ্ছেন। বিধানসভা এলাকার বাসিন্দাদের হয়ে আমরা রাস্তায় নেমেছি। আমাদের বিধায়ককে ‘খুঁজে দেওয়ার’ জন্য আমরা পুলিসের দ্বারস্থ হয়েছি।  এদিকে, তৃণমূলের আন্দোলন এবং ‘মিসিং ডায়েরি’ দায়ের নিয়ে এদিন দুপুরে প্রতিক্রিয়া জানতে শ্রীরূপাদেবীকে ফোন করা হলে তিনি বলেন, আমি বিধানসভার স্বরাস্ট্র বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য। কমিটির অন্যান্য সদস্যদের সঙ্গে এদিন আমি হুগলি জেলা সংশোধনাগার পরিদর্শনে গিয়েছিলাম। তারপরেও কিভাবে মিসিং ডায়েরি হতে পারে?অন্যদিকে,নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিজেপি নেতা বলেন, আমাদের দলের বিধায়ক সরকারি কমিটির কাজ নিষ্ঠাভরে করছেন। এটা ভালো কথা। তবে সংগঠনের কাজে এবং বিধানসভার মানুষের সঙ্গে জনসংযোগের কাজও এভাবে করলে ভালো হয়। তিনি অন্যান্য জেলায় পরিদর্শনে যেতে পারেন। কিন্তু নিজের বিধানসভা এলাকায় সময় দিতে পারেন না? এভাবে বিরোধীদের হাতে বিজেপিকে আক্রমণের অস্ত্র তুলে দেওয়ার কোনও মানে হয় না। উল্লেখ্য, রাজ্যের অন্যান্য জেলার তুলনায় এবার মালদহে বিজেপি ভালো ফল করেছে। সংখ্যালঘু অধ্যুষিত জেলায় গেরুয়া শিবিরের এই ফল যথেষ্ট আশাব্যঞ্জক বলে দলীয় নেতৃত্বের দাবি। ইংলিশবাজার বিধানসভায় বিজেপির জয় গেরুয়া বাহিনীকে বাড়তি অক্সিজেন জুগিয়েছে। আগামী পুর নির্বাচনে ইংলিশবাজার শহরে তৃণমূল এবং বিজেপির মধ্যে জোর টক্কর হতে পারে বলে রাজনৈতিক মহল মনে করছে। তার আগে বিধায়ককে নিয়ে বিজেপির এই অস্বস্তি দলকে যথেষ্ট বিপাকে ফেলেছে। এদিন বিধায়কের অনুপস্থিতির বিষয়টি ‘বর্তমানে’ প্রকাশিত হওয়ার পর জেলার রাজনৈতিক মহলে জোর চর্চা শুরু হয়। বিজেপি এবং বিরোধী দলগুলির মধ্যে এনিয়ে আলোচনা হয়।
  • Link to this news (বর্তমান)