• মহিলা রেলকর্মীর বাড়িতে চুরির পর শ্লীলতাহানি, অণ্ডালের ঘটনায় চাঞ্চল্য
    বর্তমান | ২৬ নভেম্বর ২০২১
  • সংবাদদাতা, দুর্গাপুর: বুধবার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ অণ্ডালের রেলকলোনি এলাকায় আবাসনে নিজের ঘরে শুয়ে মোবাইলে ব্যস্ত ছিলেন মহিলা রেলকর্মী। কাজের সূত্রে ওই আবাসনের ঘরে তিনি একাই থাকতেন। সেইসময় বন্ধ ছিল ঘরের আলো। হঠাৎ করেই মোবাইলের স্ক্রিনের মৃদু আলোয় তিনি দেখতে পান, কেউ হামাগুড়ি দিয়ে তাঁর ঘরে ঢুকছে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই মহিলার গলায় ছুরি ধরে দুষ্কৃতী। তারপরই চলে লুটপাট। গলায় সোনার চেন, শাঁখা বাঁধানো, আংটি খুলে নেওয়ার পর মহিলার শ্লীলতাহানি করে। তাঁকে পরনের পোশাক খুলতে বলা হয়। তাতে রাজি না হওয়ায় ছুরি দিয়ে পোশাক কেটে দেয়। এরপর চিৎকার চেঁচামেচি করলে দুষ্কৃতী চম্পট দেয়। এমনকী চোরের সঙ্গে ধস্তাধস্তির সময় ছুরির আঘাতে মহিলার দু’টি হাত জখম হয়। সরকারি আবাসনে এই ধরনের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে। আসানসোল-দুর্গাপুর পুলিস কমিশনারেটের এসিপি(অণ্ডাল) তাহেদ আনোয়ার বলেন, একটা অভিযোগ এসেছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।পুলিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বছর ৩৫-এর ওই মহিলা আসানসোল রেল ডিভিশনের ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের কর্মী। তাঁর বাড়ি পূর্ব বর্ধমানের ভাতার এলাকায়। তিনি প্রায় আট বছর অণ্ডাল এলাকায় রয়েছেন। রেল আবাসনে একাই থাকতেন। ওইদিন সন্ধ্যা ৭ টা নাগাদ আবাসনে ফেরেন। তিনি বলেন, রাত সাড়ে ৮টার সময় আমি ঘরের ভিতরে মোবাইল দেখছিলাম। আবাসনের গ্রিলের গেটে তালা দেওয়া ছিল না। সেই সময় আশপাশের লোকজন জেগেই ছিলেন। দুষ্কৃতীটি কালো জ্যাকেট ও মাঙ্কি টুপি পরেছিল। আমার গলায় ধারালো ছুরি ধরে মুখ চেপে ধরে। চিৎকার করলে প্রাণে মেরে দেওয়ার হুমকি দেয়। তারপর আমাকে আলমারি খুলতে বলে। আমি ভয়ে আলমারি খুলে দিই। আমি এখানে চাকরি করি। তাই ফাইলপত্র ছাড়া আলমারিতে কিছুই ছিল না। সব দেখে সে আমার গলায় থাকা সোনার চেন। হাতের শাখা বাঁধানো ও একটি আংটি খুলে নেয়। 

    আমি ভেবেছিলাম, সোনার গয়না নিয়ে দুষ্কৃতী চম্পট দেবে। কিন্তু আমাকে অবাক করে দিয়ে বলে, পোশাক খোল। আমি রাজি না হওয়ায় আমার পোশাকের কিছুটা ছুরি দিয়ে কেটে দেয়। আমি সম্মান বাঁচাতে তখন মরিয়া হয়ে ওর সঙ্গে ধস্তাধস্তি শুরু করি। তারপর চোর চোর বলে চিৎকার করতে শুরু করি। পরিস্থিতি বেগতিক বুঝে ওই দুষ্কৃতী আবাসনের পাঁচিল টপকে পালিয়ে যায়। কোনওরকমে আমি রক্ষা পাই। আমি যে ঘরে একা থাকি, সেটা সম্ভবত ওই দুষ্কৃতী লক্ষ্য রেখেছিল। চুরি করাই ওই দুষ্কৃতীর উদ্দেশ্য ছিল। কিন্তু গয়না নেওয়ার পর ওর মাথায় কুমতলব চেপে বসে। সমস্ত ঘটনার কথা পুলিসকে জানিয়েছি। থানায় অভিযোগও দায়ের করেছি।
  • Link to this news (বর্তমান)