•  স্কুলে বেআইনি নিয়োগ পাওয়ায় অভিযুক্ত ৫৪২ জন যুক্ত মামলায়
    বর্তমান | ২৬ নভেম্বর ২০২১
  • নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: স্কুলে চতুর্থ শ্রেণির কর্মী নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগে বুধবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি হরিশ ট্যান্ডনের ডিভিশন বেঞ্চ ‘সিবিআই অনুসন্ধান’ নির্দেশে স্থগিতাদেশ দেয়। কিন্তু, মূল মামলায় নয়। এই প্রেক্ষাপটে বৃহস্পতিবার বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসে মূল মামলায় মামলাকারীরা আরও ৫৪২ জনের নথিপত্র পেশ করলেন। এঁরাও প্যানেলের মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়ার পর ঘুরপথে চাকরি পেয়েছেন বলে অভিযোগ। এঁদেরও এই মামলায় যুক্ত করার নির্দেশ আগেই দেওয়া ছিল। এদিন বিচারপতি সংশ্লিষ্ট জেলা স্কুল পরিদর্শকদের বলেছেন, এই ৫৪২ জনের বেতন বন্ধ রাখার নির্দেশ জারি করতে হবে। উল্লেখ্য, এভাবে চাকরি পাওয়া ২৫ জনের বেতন বন্ধ রাখার নির্দেশ আগেই জারি হয়েছিল। ৯ ডিসেম্বর এই মামলার পরবর্তী শুনানি হতে পারে। তার মধ্যে দুই বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ রাজ্য সরকার, মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও স্কুল সার্ভিস কমিশনের সিবিআই অনুসন্ধানে তোলা আপত্তির নিষ্পত্তি করবে বলে আশা করা হচ্ছে। 

    যে ৫৪২ জনের নথি এদিন পেশ হয়, তা কমিশনকে খতিয়ে দেখতে বলা হয়েছে। যদি সেখানে দেখা যায়, প্যানেলের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পরে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়েছিল, তাহলে কমিশন সংশ্লিষ্ট জেলা স্কুল পরিদর্শকদের নির্দেশ জারি করে সেইসব কর্মীর বেতন বন্ধ রাখতে বলবে। সরকার পক্ষের সওয়ালের জবাবে বিচারপতি সাফ জানিয়েছেন, সুপারিশ বেআইনি হয়ে থাকলে সেইসব নিয়োগও বেআইনি। আর যাঁরা এভাবে নিয়োগ হয়েছেন, তাঁদের সরকারি কোষাগার থেকে বেতন পাওয়ার অধিকার নেই। 
  • Link to this news (বর্তমান)