• চলতি অর্থবর্ষে ৯.৩ শতাংশ জিডিপির পূর্বাভাস শোনাল রেটিং সংস্থা মুডিজ
    বর্তমান | ২৬ নভেম্বর ২০২১
  • নয়াদিল্লি: ভারতের অর্থনীতি নিয়ে আশার কথা শোনাল রেটিং প্রদানকারী আন্তর্জাতিক সংস্থা মুডিজ। পরিকাঠামো ক্ষেত্রে সরকারের ব্যয়, করোনা প্রতিরোধে টিকাকরণের উচ্চগতি এবং দেশে পণ্যের চাহিদা বৃদ্ধির কথা উল্লেখ করে তারা জানিয়েছে, চলতি অর্থবর্ষে (২০২১-২২) দেশের আর্থিক বৃদ্ধির হার হতে পারে ৯.৩ শতাংশ। পাশাপাশি, আগামী আর্থিক বছরে অর্থাৎ ২০২২-২৩ সালে ভারতের জিডিপি ৭.৯ শতাংশে পৌঁছতে পারে বলেও পূর্বাভাস শুনিয়েছে এই মার্কিন সংস্থা।

    মুডিজ মনে করছে, ভারতের অর্থনীতি দ্রুত পুনরুদ্ধার হবে এবং শক্তিশালী ভিতের উপর দাঁড়াবে। তারা পরিকাঠামো ক্ষেত্রে সরকারের ব্যয়কে বড় ফ্যাক্টর হিসেবে উল্লেখ করেছে। কেননা এর ফলে দেশে সিমেন্ট ও স্টিলের চাহিদা বাড়ছে। দেশে চাহিদা বৃদ্ধির ফলে অভ্যন্তরীণ উৎপাদন বাড়ছে। পাশাপাশি বিনিয়োগের একটা ভালো পরিবেশ তৈরি হয়েছে। সবমিলিয়ে লগ্নিতে জোয়ার আসছে। এছাড়া করোনা ঠেকাতে টিকাকরণে উচ্চগতি এবং স্বল্প সুদের হার দেশের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে বড় ভূমিকা নিচ্ছে। মুডিজের বিশেষজ্ঞ স্বেতা পাতোড়িয়া বলেছেন, ‘করোনা মোকাবিলায় টিকাকরণের অগ্রগতি ভারতকে অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের ক্ষেত্রে স্থিতিশীল জায়গায় নিয়ে যেতে সাহায্য করবে। করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধ শিথিল হওয়ার ফলে ক্রেতাদের চাহিদা, ক্রয়ক্ষমতা এবং উৎপাদন পুনরুদ্ধার হচ্ছে।’

    তবে, একইসঙ্গে সতর্কও করে দিয়েছে মুডিজ। পাছে ইউরোপের মতো নতুন করে ভারতেও করোনা সংক্রমণ মাথাচাড়া দেয়। সেক্ষেত্রে নতুন করে লকডাউন, বিধিনিষেধ জারি হলে ক্রেতাদের মনোবল ভেঙে যাবে। এর ফলে দেশের অর্থনীতির চাকা বসে যাবে। ক্রেতারা ক্রয়ক্ষমতা হারাবে। পাশাপাশি, সরকারি ব্যয়ে বিলম্ব এবং বিদ্যুতের ঘাটতি নিয়েও সতর্ক করে দিয়েছে মুডিজ। কেননা বিদ্যুতের ঘাটতি হলে শিল্পোৎপাদন বিঘ্নিত হবে। প্রসঙ্গত, গত অক্টোবরেই ভারতের অর্থনৈতিক বৃদ্ধির রেটিং নেতিবাচক থেকে স্থিতিশীল র‌্যা ঙ্ক দিয়েছিল মুডিজ। বলেছিল, করোনার আঘাত সামলে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে দেশের অর্থনীতি।
  • Link to this news (বর্তমান)