• ফের তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দলের অভিযোগ তুফানগঞ্জে, আহত ৫
    এই সময় | ১৫ জানুয়ারি ২০২২
  • এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: ফের কোচবিহারে প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দল! এবার ১০০ দিনের কাজ নিয়ে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল কোচবিহারের তুফানগঞ্জ। শুক্রবার সকালের এই ঘটনায় অন্তত ৫ জন জখম হয়েছে। তুফানগঞ্জ থানাতেও তৃণমূলের দুই গোষ্ঠী পরস্পরের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে। যদিও গোষ্ঠীকোন্দলের অভিযোগ অস্বীকার করেছে জেলা তৃণমুল নেতৃত্ব।

    পুলিশ সূত্রে খবর, তুফানগঞ্জ-১ ব্লকের অন্দরান ফুলবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় কাজের দখলদারি নিয়ে দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষে ৫ জন জখম হয়েছে। মূলত প্রাক্তন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ ও জেলা তৃণমূলের প্রাক্তন সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়ের অনুগামীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে বলে অভিযোগ। দু-পক্ষের তরফেই তুফানগঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

    স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, কোচবিহারের প্রাক্তন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ ও প্রাক্তন জেলা সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়ের মধ্যে বিরোধ দীর্ঘদিনের। একই দলের ছত্রছায়ায় থাকলেও বিরোধ এতটাই যে, দুই নেতার মুখ দেখাদেখি কার্যত বন্ধ। যার জেরে গত কয়েক বছরে প্রায়ই জেলার বিভিন্ন এলাকায় দুই নেতার অনুগামীদের মধ্যে সংঘর্ষের অভিযোগ ওঠে।

    এদিন যেখানে গণ্ডগোল বাধে, তুফানগঞ্জের অন্দরান ফুলবাড়ি-২ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাটি মূলত রবীন্দ্রনাথ ঘোষ ও তাঁর অনুগামীদের দখলে। স্বাভাবিকভাবেই সেখানে ১০০ দিনের কাজের তালিকায় পার্থপ্রতিম রায়ের অনুগামীদের নাম ছিল না। সেটা নিয়েই এদিন সকালে দুই গোষ্ঠীর সদস্যদের মধ্যে গণ্ডগোল বাধে। বাকবিতণ্ডা থেকে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন দুই গোষ্ঠীর নেতা-কর্মীরা। তারপর পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। সংঘর্ষের জেরে দু-পক্ষের মোট ৫ জন জখম হয়েছে। পুলিশের তরফেই তাদের তুফানগঞ্জ মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। যদিও কারওর আঘাত গুরুতর নয়। প্রাথমিক চিকিৎসার পর সকলকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এরপর দুই গোষ্ঠীর তরফে পরস্পরের বিরুদ্ধে তুফানগঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। গোটা ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

    এলাকাবাসীর বয়ান থেকে পুলিশের অভিযোগপত্রে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর বিরোধ প্রকাশ্যে এলেও গোষ্ঠীকোন্দলের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কোচবিহার জেলা তৃণমূল সম্পাদক আব্দুল জলিল আহমেদ। এদিনের গণ্ডগোলের দায় BJP-র উপর চাপিয়ে তিনি বলেন, ‘তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দলের অভিযোগ ভিত্তিহীন। BJP হামলা চালিয়েছে।’ অপরদিকে, BJP-র কোচবিহার জেলা সম্পাদক সঞ্জয় চক্রবর্তী পাল্টা বলেন, ‘নিজেদের গোষ্ঠী কোন্দল ঢাকতে BJP-র বিরুদ্ধে অভিযোগ করছে।’ গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে তুফানগঞ্জ থানার পুলিশ।

    নিজস্ব চিত্র
  • Link to this news (এই সময়)