• পর্যটকদের সুরক্ষায় জোর, ডিএসপি দীঘা পদ তৈরি করছে জেলা পুলিস
    বর্তমান | ১৫ জানুয়ারি ২০২২
  • নিজস্ব প্রতিনিধি, তমলুক: দীঘা, মন্দারমণিতে যাওয়া পর্যটকদের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে ডিএসপি(দীঘা) পদ তৈরি করছে জেলা পুলিস। শীঘ্রই নতুন পদে ডিএসপি(ডিঅ্যান্ডটি) সাকিব আহমেদকে পাঠানো হচ্ছে। দীঘা, রামনগর, দীঘা মোহনা কোস্টাল, মন্দারমণি কোস্টাল, জুনপুট কোস্টাল প্রভৃতি থানা এলাকায় রুটিন কাজকর্ম তদারকি করবেন ডিএসপি(দীঘা)। দীঘা ও মন্দারমণিতে সিআরজেড(কোস্টাল রেগুলেশন জোন)আইন ভেঙে হোটেল তৈরি, হোটেল সম্প্রসারণ সহ নানারকম বেআইনি কাজের অভিযোগ আসছে। পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের আদলে দীঘায় তৈরি হচ্ছে জগন্নাথ মন্দির। মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের ওই প্রজেক্ট যাতে মসৃণ গতিতে এগয়, সেদিকেও বিশেষ নজর দিচ্ছে প্রশাসন ও পুলিস। তাই দীঘা, রামনগর, দীঘা মোহনা কোস্টাল, মন্দারমণি কোস্টাল, জুনপট থানা এলাকার জন্য পৃথক ডিএসপি(দীঘা) পদ তৈরির পরিকল্পনা বলে জেলা পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে। পুলিস সুপার অমরনাথ কে বলেন, ডিএসপি(দীঘা) পদ তৈরি করা হচ্ছে। আগামী এক মাসের মধ্যে ডিএসপি(ডিঅ্যান্ডটি)কে ওই পদে নিয়োগ করা হবে। তিনি রামনগরে বসবেন।

    কাঁথি মহকুমার মধ্যে কাঁথি, দীঘা, দীঘা মোহনা কোস্টাল, মন্দারমণি কোস্টাল, রামনগর, মারিশদা, ভূপতিনগর, খেজুরি, জুনপুট কোস্টাল, তালপাটিঘাট কোস্টাল এবং কাঁথি মহিলা থানা রয়েছে। এর বাইরে রয়েছে হেঁড়িয়া ফাঁড়ি। কাঁথি মহকুমা পুলিস অফিসারকে একসঙ্গে এতগুলি থানায় নজর দিতে হয়। কাঁথি ও এগরা মহকুমা নিয়ে অতিরিক্ত পুলিস সুপার(গ্রামীণ) পদ রয়েছে। সেখানে অতিরিক্ত পুলিস সুপার আছেন। জানা গিয়েছে, অতিরিক্ত পুলিস সুপার(গ্রামীণ)এর অধীনে তিনজন ডিএসপি পদমর্যাদার অফিসার থাকবেন। কাঁথি এবং এগরার দুই এসডিপিও ছাড়াও ডিএসপি(দীঘা) থাকবেন।

    প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ পর্যটক দীঘা, মন্দারমণি বেড়াতে আসেন। করোনার কারণে গত দু’বছর পর্যটন শিল্প খানিকটা ধাক্কা খেলেও গড়ে প্রতি বছর ৪০-৪৫ লক্ষ পর্যটক দীঘায় বেড়াতে আসেন। বিপুল সংখ্যক গাড়ি ১১৬বি জাতীয় সড়কের উপর দিয়ে যায়। জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ঘটে ওই জাতীয় সড়কে। সেজন্য ডিএসপি(ট্রাফিক-২) পদ তৈরি করে দিব্যেন্দু দাসকে নিয়োগ করা হয়েছে। মারিশদা থানায় ডিএসপি(ট্রাফিক-২) অফিস। দুর্ঘটনা মোকাবিলায় কাঁথিতে ট্রাফিক ইনসপেক্টর নিয়োগ করা হয়েছে। পর্যটকদের পথ নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই ট্রাফিক বিভাগে জেলা পুলিসের এই পরিকল্পনা। 

    এখন দীঘা, মন্দারমণিতে আইনশৃঙ্খলা সুরক্ষায় উপর জোর দিতে ডিএসপি(দীঘা) পদ তৈরি করা হচ্ছে। এক সময় এসডিপিও(ট্যুরিজম) পদ তৈরির ভাবনাচিন্তা ছিল। যদিও সেটা ডিএসপি(দীঘা) হিসেবে মঞ্জুর হয়েছে।

    এর পাশাপাশি জেলায় পটাশপুর ও নন্দীগ্রাম থানাকে ভেঙে পৃথক থানার পরিকল্পনাও রয়েছে। সেজন্য প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে পুলিস ডাইরেক্টরেটে। কিন্তু, পর্যাপ্ত পুলিস অফিসার ও কর্মী পাওয়া নিয়ে সমস্যা থাকায় ওই পরিকল্পনা কার্যকর হতে ঢের সময় লাগবে বলে জেলা পুলিস অফিসাররা মনে করছেন। নন্দীগ্রাম-১ ও ২ ব্লক নিয়েই নন্দীগ্রাম থানা। একইভাবে পটাশপুর-১ ও ২ ব্লক এলাকা নিয়ে পটাশপুর থানা। দু’টি থানারই আয়তন বড়। তাই ওই দু’টি থানা ভেঙে নতুন আরও দু’টি থানার পরিকল্পনা রয়েছে।
  • Link to this news (বর্তমান)