• দলিত বাড়িতে খিচুড়ি রাজনীতি যোগীরমহাভাঙনের বিপর্যয়
    বর্তমান | ১৫ জানুয়ারি ২০২২
  • লখনউ: উত্তরপ্রদেশে দ্বিতীয় দফার ভোটেই মোক্ষম চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে চলেছে বিজেপি। আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি এই পর্যায়ের ভোট হবে পশ্চিমের মোরাদাবাদ, সাহরানপুর, বিজানুর, অমরোহা জেলায়। একই সঙ্গে মধ্য উত্তরপ্রদেশের বদাউন ও শাহজাহানপুর জেলাতেও ভোট। সবমিলিয়ে ৫৫টি আসনে ভোট-ভবিষ্যৎ ঠিক হবে রাজনৈতিক দলগুলির। সেক্ষেত্রে গেরুয়া শিবিরের ভাগ্য কতটা সুপ্রসন্ন হবে, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে। কারণ, প্রতিটি আসনই দলিত ও সংখ্যালঘু অধ্যুষিত। বেশ কয়েকটিতে আবার জাঠ সম্প্রদায়ের মানুষ নিয়ন্ত্রকের ভূমিকায় রয়েছেন। তাই দ্বিতীয় দফার এই ভোটে বাড়তি অ্যাডভান্টেজ পেতে পারে সমাজবাদী পার্টি (সপা) ও রাষ্ট্রীয় লোকদল (আরএলডি)-এর জোট। 

    গত বিধানসভা নির্বাচনে এই পশ্চিমপ্রান্তে অবশ্য ভালো ফল করেছিল বিজেপি। প্রবল মোদি ঝড়ের সঙ্গে কড়া মেরুকরণের দাওয়াইয়ে কার্যত খড়কুটো হয়ে গিয়েছিল বিরোধীরা। ৩৮টি আসন পেয়েছিল গেরুয়া শিবির। ১৫টি পেয়েছিল সপা। তাদের সঙ্গে জোট করে কংগ্রেসের দখলে ছিল মাত্র দু’টি আসন। মায়াবতীর বহুজন সমাজ পার্টি (বসপা) কে শূন্যহাতে ফিরিয়ে দিয়েছিল পশ্চিম। এবার সেই অঙ্ক অনেকটা বদলে যাবে বলে মনে করছে রাজনৈতিক শিবির। তাদের ব্যাখ্যা, এখন মোদি ম্যাজিক অস্তমিত। তারউপর যোগী সরকারের বৈষম্যমূলক আচরণ নিয়ে দলিত ও জাঠেদের একটা বড় অংশ বেজায় ক্ষুব্ধ। বিজেপিকে হটাতে এককাট্টা মুসলিমরাও। পশ্চিমপ্রান্ত মূলত কৃষি নির্ভর। কৃষকদের বিভিন্ন সমস্যা মোকাবিলায় গত পাঁচ বছরে কোনও সদর্থক ভূমিকা নিতে পারেননি মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। ন্যায্যমূল্যে ফসল ক্রয়ে ব্যর্থতা, অনিয়ন্ত্রিত সারের দাম সহ একাধিক ইস্যুতে কৃষকরা তাঁর উপর অসন্তুষ্ট। উল্টে, লখিমপুর খেরিতে কৃষক হত্যার ঘটনায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও তাঁর ছেলে অভিযুক্ত। সেক্ষেত্রে বিজেপিকে মোক্ষম জবাব দিতে সপা-আরএলডি জোটকে ভোটাররা বেছে নিতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। এমনিতেই পশ্চিমপ্রান্তের প্রায় প্রতিটি জেলাতেই এই দুই দলের প্রভাব-প্রতিপত্তি আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। মধ্য উত্তরপ্রদেশের যাদব ও জাঠদের ভোট ব্যাঙ্ক সপার দখলে। সংখ্যালঘুদের একটা বড় অংশ কংগ্রেসের দিকে ঝুঁকে। রাজনৈতিক মহল মনে করছে, এবার ভোটে বিজেপির মেরুকরণের তাসকে সাধারণ মানুষ খুব একটা পাত্তা দিচ্ছেন না। ফলে হিন্দু ভোট ভাগাভাগির প্রশ্নে বিজেপি খুব বেশি সুবিধা করতে পারবে না। এদিকে, উন্নাওয়ের নির্যাতিতার মা আশা সিংকে প্রার্থী করেছে কংগ্রেস। শুক্রবার তাঁকে সমর্থনের কথা ঘোষণা করল সমাজবাদী পার্টিও।  
  • Link to this news (বর্তমান)