• কেরলে সন্ন্যাসিনী ধর্ষণে অভিযুক্ত প্রাক্তন বিশপ বেকসুর, রায় আদালতের‘হতবাক’ আইনজীবী থেকে তদন্তকারী অফিসার
    বর্তমান | ১৫ জানুয়ারি ২০২২
  • কোট্টায়াম: অভিযুক্তের বিরুদ্ধে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ সংগ্রহ করতে পারেনি পুলিস। শুক্রবার এমনই মন্তব্য করে সন্ন্যাসিনী ধর্ষণ মামলায় অভিযুক্ত কেরলের প্রাক্তন বিশপ ফ্রাঙ্কো মুলাক্কালকে মুক্তি দিল কোট্টায়ামের আদালত। এই মামলায় ২০১৮ সালে গ্রেপ্তার হন ওই খ্রিস্টান যাজক। এদিন তাঁকে যাবতীয় অভিযোগ থেকে নিষ্কৃতি দিয়ে রায় দেন কোট্টায়ামের অতিরিক্ত সেশন কোর্টের বিচারক জি গোপাকুমার। যদিও, প্রথম থেকেই এই মামলায় নিজেকে নির্দোষ বলে দাবি করে এসেছিলেন এই প্রাক্তন বিশপ। পাশে পেয়েছিলেন জলন্ধর ডায়োসেস কর্তৃপক্ষকেও। এদিন আদালতের রায়দানের পর বিবৃতি দিয়ে ডায়োসেস-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ‘অবশেষে বিশপ ফ্রাঙ্কো মুলাক্কালকে মুক্তি দিয়েছে কোট্টায়ামের আদালত। সেই সব সমর্থক ও আইনজীবীদের আমরা ধন্যবাদ জানাই, যাঁরা আমাদের সঙ্গে শেষপর্যন্ত ছিলেন।’  

    অভিযোগকারিণী মিশনারিজ অব জেসাস অব দ্য ক্যাথলিক চার্চের ওই সন্ন্যাসিনী কুরাভিলানগাদ থানায় দায়ের করা অভিযোগে জানিয়েছিলেন, ২০১৪ সালের ৫ মে, জলন্ধর ডায়োসেস অব রোমান ক্যাথলিক চার্চের তৎকালীন বিশপ ফ্রাঙ্কো মুলাক্কাল কুরাভিলানগাদ কনভেন্টে এসেছিলেন। ওই রাতেই নিজের ঘরে ডেকে এনে মুলাক্কাল তাঁকে ধর্ষণ করেন। শুধু তাই নয়, এরপর ২০১৪ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ১৩ বার তিনি একইভাবে বিশপের হাতে ধর্ষিত হন বলে দাবি করেন নির্যাতিতা। এদিন আদালতের রায়দানের প্রেক্ষিতে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে অভিযোগকারিণীর লিগাল টিমের অন্যতম সদস্য আইনজীবী সন্ধ্যা রাজু বলেন, ‘এই রায় নির্যাতিতা এবং তাঁর সমর্থনে দাঁড়ানো অন্য সন্ন্যাসিনীদের কাছে অত্যন্ত হতাশার। রায়ের বিস্তারিত কপি পড়ে বোঝার চেষ্টা করব, ঠিক কীসের ভিত্তিতে অভিযুক্ত বিশপ মুক্তি পেলেন। আমরা অবশ্যই উচ্চ আদালতে আপিল করব।’

    আদালতের রায়ে হতবাক হয়েছেন এই মামলার অন্যতম তদন্তকারী অফিসার কোট্টায়ামের প্রাক্তন এসপি হরিশঙ্করও। গোটা বিষয়টিকে ‘অলৌকিক’ তকমা দিয়ে তিনি বলেন, ‘পুলিসের তরফে কোনও গাফিলতি ছিল না। সমস্ত সাক্ষীকে হাজির করা হয়েছিল। টানা ন’দিন নির্যাতিতাকে সামনে বসিয়ে জেরা-পর্ব চলেছে। প্রচুর মেডিক্যাল এবং অন্যান্য প্রমাণ পেশ করা হয়েছিল। অভিযুক্ত পক্ষের আইনজীবীরাও নিজেদের যুক্তি আদালতে প্রতিষ্ঠিত করতে পারেননি। এদিন সকাল পর্যন্তও আমরা আমরা আশা করেছিলাম, অভিযুক্ত দোষী সাব্যস্ত হবেন। আমরাই জয়ী হব। সেখানে কোর্টের এই রায় আমাকে অবাকই করেছে।’ রায়ের বিস্তারিত কপি হাতে পেলেই তাঁর কাছে বিষয়টি পরিষ্কার হবে বলেই জানান ওই পুলিসকর্তা। 
  • Link to this news (বর্তমান)