• ২০২৩ সালে অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজ খেলবে দক্ষিণ আফ্রিকা, নিশ্চিত করলেন গ্রেম স্মিথ
    হিন্দুস্তান টাইমস | ১৫ জানুয়ারি ২০২২
  • দক্ষিণ আফ্রিকা২০২৩সালে অস্ট্রেলিয়া এবং ইংল্যান্ড সিরিজের পুনঃনির্ধারণ করার পরিকল্পনা করছে, বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকা (সিএসএ) ক্রিকেটের পরিচালক গ্রেম স্মিথ। কোভিড-১৯ উদ্বেগের কারণে গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হওয়া অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজ বাতিল করা হয়েছিল। এখন ২০২৩ সালের অগস্টে সেই খেলা হবে। ইংল্যান্ড দল ২০২২-২৩ সালের শীতকালে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর আসবে। যা ২০২০ সালের ডিসেম্বরে স্থগিত করা হয়েছিল।

    ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী নিক হকলি এর আগে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে২০২৩ উইন্ডোতে ম্যাচ খেলতে দুই বোর্ড সম্মত হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকা অগস্টে বেশিরভাগ আন্তর্জাতিক সফরের আয়োজন করে না।তবে২০১৬ সালে সেঞ্চুরিয়ন এবং ডারবানে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট খেলেছিল।গ্রেম স্মিথ বলেছেন, ‘আমার মনে হয় ইংল্যান্ড আগামী বছর ফেব্রুয়ারি-মার্চে আসবে এবং তারপর২০২৩সালের অগস্টে অস্ট্রেলিয়া দল টেস্ট সিরিজ খেলতে আসবে। শিগগিরই তা ঘোষণা করা হবে।’

    স্মিথ বলেছেন, 'কোভিডের কারণে সিরিজটি হয়নি এবং চ্যালেঞ্জ হল আট বছরে আটটি সাদা বলের ইভেন্ট করা, আইপিএলও রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে, আপনার ক্যালেন্ডার ফিট করা সবার জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ। তাই আপনাকে পর্যালোচনা করতে হবে। সময়ের সাথে দাঁড়াতে হবে। আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে যে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেটকে মানচিত্রে রাখে।’প্রাক্তন অধিনায়কের মতে, ‘আমাদের পুরুষ এবং মহিলা উভয় দলেরই আরও ভালো পারফর্ম করতে হবে এবং এটা জানা গুরুত্বপূর্ণ যে লোকেরা আমাদের খেলতে দেখতে চায়। তবে আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যে বিশ্ব ক্রিকেটে যখন এমন ঘটনা ঘটছে,তখন দক্ষিণ আফ্রিকা এগিয়ে আছে।’

    স্মিথ বলেন, 'ক্রিকেট এই মুহূর্তে চ্যালেঞ্জিং সময়ে। আমি যদি শুধু আমার জাতীয় দলের কথা চিন্তা করি, ভারতের বিরুদ্ধে বায়ো বাবলে আমাকে ৫২ দিন কাটাতে হয়েছে। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে হোম সিরিজে খেলোয়াড়দের ১০ দিন আইসোলেশনে থাকতে হবে। এরপর বাংলাদেশ, আইপিএল, ইংল্যান্ড সফর, ভারত সফর, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।’

    তবে এর মাঝেও ভারতের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজ জেতায় বেশ উচ্ছসিত গ্রেম স্মিথ। তিনি নিজের টুইটারে একিট বার্তা দিয়েছেন। যেখানে তিনি লিখেছেন,‘শেষ পর্যন্ত সীমান্তটা শক্তিশালী রয়ে গেছে।’
  • Link to this news (হিন্দুস্তান টাইমস)