• দুর্ঘটনার পর ময়নাগুড়িতে ট্রেন পরিষেবা শুরু করতে তৎপর রেল
    এই সময় | ১৫ জানুয়ারি ২০২২
  • এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: ময়নাগুড়িতে ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনার পর মাঝে কেটে গিয়েছে এক দিন। কী কারণে লাইনচ্যুত হয়েছিল ট্রেনটি? তা নিয়ে শুরু হয়েছে তদন্ত। এদিকে, এই লাইনে দ্রুত ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক করতে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় কাজ করেন রেল কর্মীরা। খুব শীঘ্রই ইঞ্জিনের ট্রায়াল রান শুরু করবে রেল দফতর, জানা গিয়েছে এমনটাই। রেলবোর্ডের চেয়ারম্যান বি কে ত্রিবেদী জানান, আপাতত এই লাইনটিকে সচল করাই আমাদের কাছে প্রাথমিকতা পাচ্ছে। শনিবার থেকেই সংশ্লিষ্ট লাইনে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

    উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার ভয়াবহ দুর্ঘটনার মুখে পড়ে পটনা থেকে গুয়াহাটিগামী ট্রেন বিকানির এক্সপ্রেস (Train Accident)। লাইনচ্যুত হয়ে যায় ট্রেনের ১২টি কামরা। ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে নয় জনের এবং আহত ৩৬ জন। শুক্রবারই ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেন রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণ। এদিন তিনি বিকানির এক্সপ্রেসের চালক এবং গার্ডের সঙ্গে কথা বলেন । দুর্ঘটনায় আহতদের দেখতে হাসপাতালে যান। রেলমন্ত্রী বলেন, 'কামরাগুলির জন্য এই দুর্ঘটনা ঘটেনি। ইঞ্জিনগুলি খতিয়ে দেখা হবে। এরপরেই দুর্ঘটনার আসল কারণ স্পষ্ট হবে।'

    এদিকে এই ঘটনায় ষড়যন্ত্রের গন্ধ আভাস পেয়েছেন রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। তিনি বলেন, 'ট্রেন কি নিজে নিজেই ডিরেইল হয়? রেল ট্র্যাক কি বেচারা বোঝে, ভাই ইলেকশন সামনে। রেল নিয়ে অনেক বছর কোনও বাজে খবর হয়নি। মানুষের প্রাণ নিয়ে ছেলেখেলা।' এদিকে রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে আরও যন্তশীল হওয়া উচিৎ বলে জানিয়েছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী। তিনি বলেন, 'ময়নাগুড়ির দুর্ঘটনা অনেক প্রশ্ন তুলেছে। ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত হোক। রেলের অনেক পদ ফাঁকা পড়ে রয়েছে। রক্ষণাবেক্ষণে ঠিকঠাক নজর দিতে হবে।'

    অন্যদিকে, কী কারণে ঘটল এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা? এই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। কিন্তু, এখনই এই প্রসঙ্গে কোনও মন্তব্য করতে নারাজ রেলের আধিকারিকরা। শনিবার বি কে ত্রিবেদী জানান, এই বিষয়ে বিস্তারিত তদন্ত হচ্ছে। তদন্তের পরেই জানা যাবে আসল কারণ। প্রসঙ্গত, এই দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারকে পাঁচ লাখ আর্থিক সাহায্য, গুরুতর আহত যাঁরা হয়েছেন তাঁদের এক লাখ এবং অপেক্ষাকৃত কম আহতদের ২৫ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য করার কথা ঘোষণা করেছে ইন্ডিয়ান রেলওয়ে।

    পশ্চিমবঙ্গের আরও খবরের জন্য ক্লিক করুন। প্রতি মুহূর্তে খবরের আপডেটের জন্য চোখ রাখুন এই সময় ডিজিটালে।
  • Link to this news (এই সময়)