• লিজ নয়, ভাড়া'য় স্টল দেবে এনকেডিএ
    এই সময় | ১৫ জানুয়ারি ২০২২
  • প্রশান্ত ঘোষ

    নিউটাউনের হাটগাছাতে মুদির দোকান আছে শঙ্কর ঢালির।একশন এরিয়া ১ এর ডিএফ ব্লকে উপাসনা গৃহের কাছে এনকেডিএর মার্কেটে একটি মুদির দোকান করতে চেয়ে তিনি লটারিতে অংশ নেন।কিন্তু মুদির দোকানের পরিবর্তে তাঁর কপালে জুটেছে বিউটি পার্লার।আবার লটারিতে যিনি মুদির দোকান পেয়েছেন তিনি আবার অ্যাড এজেন্সি খুলতে চান।

    ফলে ওই বাজারে মুদি, পার্লার, অ্যাড এজেন্সি কোনওটাই খোলেনি দীর্ঘদিন ধরে।এরকম পরিস্থিতি শুধু নিউটাউনের ওই একটি মার্কেটে নয়।এনকেডিএ গোটা নিউটাউন জুড়ে যে দশটি কমিউনিটি মার্কেট চালায়, সবক'টির একই অবস্থা।তাই এবার প্রকৃত 'পেশাদার'দেরই দোকান বন্টন করতে চায় এনকেডিএ।সেই মর্মে সম্প্রতি নিয়ম জারি করেছে এনকেডিএ। এনকেডিএর চেয়ারম্যান দেবাশিস সেন বলেন, 'জনসংখ্যার ভিত্তিতে বিভিন্ন কমিউনিটি মার্কেটে তিরিশ বছরের লিজে লটারির মাধ্যমে দোকান দেওয়া হয়েছে ব্যবসায়ীদের।কিন্তু অনেকেই দোকান লিজে নিয়েও দিনের পর দিন সেই দোকান ফেলে রেখেছেন।তাই এবার লিজ নয় ভাড়ায় দোকান দেওয়া হবে।'

    এই মুহুর্তে নিউটাউনের একশন এরিয়া ১ এ সাতটি, একশন এরিয়া ২ এ তিনটি অর্থ্যাত মোট দশটি কমিউনিটি মার্কেট আছে।এদের মধ্যে নিউটাউন স্বপ্ন ভোর সিনিয়র পার্ক, বলাকা আবাসন, প্রাইড হোটেলের কাছে যে কমিউনিটি মার্কেট আছে সেগুলিতে প্রায় আশি শতাংশ দোকান খুব ভাল ভাবে চলছে।ওই বাজার থেকে এলাকার আবাসিকরা তাঁদের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র পাচ্ছেন।কিন্তু এর বাইরেও বেশ কিছু মার্কেটে এখনও লটারিতে পাওয়া দোকান খোলেননি ব্যবসায়ীরা।ফলে জন সংখ্যা বিচার করে এনকেডিএ কর্তৃপক্ষ যে যে দোকান বন্টন করেছেন তা না খোলায় সমস্যায় এলাকার আবাসিকরা।একশন এরিয়া ২বি এর মালঞ্চ, ২সি এর আকাঙ্কা আবাসন, ২ডি এর সিটি সেন্টার ২ এর কাছে যে কমিউনিটি মার্কেট আছে তাঁর বেশিরভাগ দোকান গুলো বন্টনের এক বছর পরেও তালাবন্ধ।

    তাই বন্ধ দোকান চালু করতে এবং সঠিক পেশাদারদের হাতে তুলে দিতে সম্প্রতি বোর্ড মিটিং এ নতুন আইন প্রণয়ন করেছে এনকেডিএ কর্তৃপক্ষ।কি সেই আইন? এনকেডিএর এক আধিকারিক জানাচ্ছেন, এতদিন কেবল লটারির মাধ্যমেই দোকান বন্টন করত এনকেডিএ।প্রতি বর্গফুট আট হাজার টাকার বিনিময়ে তিরিশ বছরের জন্য লিজ হিসাবে দিত কর্তৃপক্ষ। এতে একশো বর্গফুটের দোকানের জন্য আট লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে ইচ্ছুক ব্যবসায়ীদের। নতুন আইন অনুযায়ী লিজের পরিবর্তে মাসিক ভাড়া হিসাবে দোকান বন্টন করা হবে।এগারো মাসের চুক্তি অনুযায়ী এবার থেকে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের প্রতি বর্গ ফুটের জন্য মাত্র ৩৪ টাকা করে দিতে হবে।তিন বছরের জন্য দোকান বা স্টল ভাড়া পাওয়া যাবে।এজন্য অগ্রাধিকার দেওয়া হবে জমি হারাদের।

    এনকেডিএর এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন এলাকার বাসিন্দারা।পাথরঘাটার বাসিন্দা প্রনয় নস্কর বলেন, 'অনেকেই ফ্ল্যাটের মত দোকান লিজ নিয়ে রেখেছে কিন্তু সেগুলো কোন কাজে লাগাচ্ছেন না।দোকনঘর যদি এলাকার ইচ্ছুক ও অভিজ্ঞ ব্যবসায়ীদের ভাড়ায় দেওয়া হয় তবে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ই উপকৃত হবেন।'

    এখানেই দেওয়া হবে স্টল
  • Link to this news (এই সময়)