• প্রতিবেশীর কুকুরকে ঢিল মারার অভিযোগ গড়াল হাতাহাতিতে! অবশেষে মর্মান্তিক পরিণতি
    এই সময় | ১৮ মে ২০২২
  • প্রতিবেশীর কুকুরকে (Dog) মারার অভিযোগে সংঘর্ষ ছড়াল দুই পাড়ার মধ্যে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। মৃতের নাম রাজীব পটুয়া (৩০)। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এই ঘটনাটি ঘটেছে বড়ঞা থানার বিপ্রশেখর গ্রাম পঞ্চায়েতের জালিবাগান গ্রামে। ঘটনার পর আশঙ্কাজনক অবস্থায় রাজীবকে উদ্ধার করে কান্দি মহকুমা হাসপাতালে (Kandi Sub Division Hospital) নিয়ে যান স্থানীয় বাসিন্দারা। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। এরপর শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হওয়ায় রাতেই তাঁকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে কলকাতার নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। নীলরতনে নিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তাতেই তাঁর মৃত্যু হয়।

    ঠিক কী ঘটেছিল?

    স্থানীয় বাসিন্দাদের তরফে জানানো হয়েছে, অভিযুক্ত বিপদ পটুয়া নিজের বাড়িতে দুটি কুকুর পুষেছিল। আর সেই দুটি কুকুর পাড়ার সদস্যদের দিকে মাঝে মধ্যেই তেড়ে যেত। এদিকে দুপুরের দিকে রাজীব পটুয়ার ছেলে ও তাঁর ভাইয়ের মেয়ে দু'জনের পুকুরের পাশে খেলছিল। সেই সময় ওই দুটি কুকুর তাদের তাড়া করে। তখন রাজীব পটুয়ার ভাই কুকুর দুটিকে ঢিল মেরে তাড়িয়ে দেয়। আর তা দেখতে পেয়েই ঝগড়া করতে শুরু করেন বিপদ পটুয়ার স্ত্রী।

    অভিযোগ, কুকুরকে মারা নিয়ে রাজীব পটুয়ার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ঝগড়া করতে শুরু করেন বিপদ পটুয়ার স্ত্রী। কুকুরকে ঢিল দিয়ে তাড়া করা নিয়েই দুই পরিবারের মধ্যে শুরু হয়ে যায় বচসা। এরপর মদ্যপ অবস্থায় বিপদ পটুয়া, তাঁর বাবা বিরিঞ্চি পটুয়া ও ছেলে বাবু পটুয়া রাজীবের ভাইকে মাটিতে ফেলে মারধর করতে শুরু করেন। রড, লাঠি ও শাবল নিয়ে গিয়ে মাটিতে ফেলে তাঁকে মারধর করা হয়। তখন অভিযুক্তদের বাধা দিতে যান রাজীব। ঠিক সেই সময়ই রাজীবকেও মারধর করেন অভিযুক্তরা। তাঁর মাথায় আঘাত করা হয়। সঙ্গে সঙ্গে মাটিয়ে লুটিয়ে পড়েন রাজীব। এরপর আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় কান্দি মহকুমা হাসপাতালে। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। এরপর শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হওয়ায় রাতেই তাঁকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে কলকাতার নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। কিন্তু, সেখানে নিয়ে যাওয়ার সময়ই রাস্তায় তাঁর মৃত্যু হয়।

    এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে মুর্শিদাবাদের জালিবাগান গ্রামজুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে। ঘটনার অভিযোগ পেয়ে ইতিমধ্যে চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার সকালে গ্রেফতার করা হয় বিপদ পটুয়াকে। তার বাড়ি জালিবাগান গ্রামে। ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে পুলিশ। উত্তেজনা থাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে এলাকায়।
  • Link to this news (এই সময়)