• Kejriwal সরকারের সঙ্গে সংঘাত! আচমকা ইস্তফা Delhi Lieutenant Governor অনিল বৈজলের
    এই সময় | ১৯ মে ২০২২
  • আচমকা পদ থেকে ইস্তফা অনিল বৈজলের (Delhi Lieutenant Governor Anil Baijal)। এদিন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের (President Ram Nath Kovind ) সঙ্গে দেখা করে নিজের ইস্তফাপত্র জমা দেন দিল্লির লেফটেন্যান্ট অর্থাৎ উপরাজ্যপাল। সূত্রের খবর, তিনি জানিয়েছেন ব্যক্তিগত কিছু কারণের জন্য এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। ২০১৬ ডিসেম্বর থেকে তিনি এই পদ সামলাচ্ছিলেন। নজীব জংয়ের ইস্তফার পর উপরাজ্যপাল হন অনিল বৈজল। বিশেষজ্ঞদের মতে, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের (Arvind Kejriwal) সঙ্গে তাঁর বিবাদ এই পদত্যাগের কারণ হতে পারে।

    নিয়মমতো দেখতে গেলে ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ সালেই লেফটেন্যান্ট জেনারেল পদে অনিল বৈজল (Anil Baijal)পাঁচ বছর পূর্ণ হয়ে গিয়েছে। কিন্তু দিল্লির উপরাজ্যপালের কোনও কার্যকালের কোনও নিশ্চিত মেয়াদ নেই। সম্প্রতি বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে দিল্লির কেজরিওয়াল সরকারের সঙ্গে উপরাজ্যপাল অনিল বৈজলের সংঘাত বাঁধে। এই বিষয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে পড়ে দিল্লি সরকার।

    প্রসঙ্গত, এক বছর আগে অনিল বৈজল দিল্লি সরকারের ১০০০ বাস কেনার প্রক্রিয়া নিয়ে তদন্তের নির্দেশ দেন এবং তিন সদস্যের কমিটি গড়ে দেন। এই ইস্যু নিয়ে ভারতীয় জনতা পার্টি সিবিআই তদন্তের আপীল করেছিল। বিপক্ষের তরফ থেকে লাগাতার প্রশ্ন ওঠার মাঝেই হস্তক্ষেপ করেন উপরাজ্যপাল। অনিল বৈজলের তৈরি প্যানেলে অবসরপ্রাপ্ত IAS অফিসার, ভিজিলেন্স বিভাগের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি এবং দিল্লি সরকারের পরিবহন দফতরের কমিশনারও সামিল আছেন। এই বিষয়টি নিয়ে দিল্লি সরকারের সঙ্গে উপরাজ্যপালের সংঘাত জাতীয় রাজনীতির ইস্যু হয়ে গিয়েছিল। যদিও আপের তরফে এখনও উপরাজ্যপালের ইস্তফা নিয়ে কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

    প্রসঙ্গত, সম্প্রতি একটি নির্দেশিকা জারি করেছে দিল্লি সরকার। সেখানে সমস্ত বেসরকারি স্কুলকে দ্রুত অনলাইন ভেরিফিকেশন প্রক্রিয়া শেষ করতে বলা হয়েছে, যাতে সংখ্যালঘু পড়ুয়াদের টিউশন ফি খুব তাড়াতাড়ি ফিরিয়ে দেওয়া যায়। 12 মে প্রকাশিত এই নির্দেশিকায় বলা হয়েছে দ্রুত ই-ডিস্ট্রিক্ট পোর্টালে সমস্ত প্রয়োজনীয় তথ্য আপডেট করতে। এই কঠোর নির্দেশিকায় স্পষ্ট বলা হয়েছে, যে পড়ুয়াদের সুবিধে দিতে দিল্লি সরকার যে অঙ্গীকার করেছে, বেসরকারি স্কুলগুলোর উদাসীনতার জন্য তা ধাক্কা খাচ্ছে ।
  • Link to this news (এই সময়)