• ১২ ঘণ্টা পরও খোঁজ নেই মন্ত্রীর, পরেশ অধিকারী ইজ নট রিচেবল
    এই সময় | ১৯ মে ২০২২
  • অবশেষে হদিশ মিলল রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারীর (Paresh Adhikary)। জানা গেল পদাতিক এক্সপ্রেসে উঠলেও তিনি মাঝপথে বর্ধমানে নেমে গিয়েছিলেন। সঙ্গে ছিলেন তাঁর মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারী (Paresh Adhikary Daughter Ankita Adhikary)। সূত্রের খবর, বুধবার ভোর ৪টে বেজে ৫২ মিনিট নাগাদ বর্ধমান স্টেশনে (Burdwan Station) পৌঁছয় পদাতিক এক্সপ্রেস (Padatik Express)। সেই সময়ই মেয়েকে নিয়ে ট্রেন থেকে নেমে পড়েন পরেশ অধিকারী (Paresh Adhikary)। স্টেশনের সিসিটিভি ফুটেজে ৪টে বেজে ৫৬ মিনিটে দেখা গিয়েছে তাঁকে। স্টেশনের পাঁচ নম্বর প্ল্যাটফর্মে নামেন তাঁরা।

    বর্ধমান স্টেশন থেকে বর্ধমান স্টেশনের ৫ নম্বর প্লাটফর্ম থেকে ফুট ওভারব্রীজ হয়ে তিনি বর্ধমান স্টেশনের মেন গেটে আসেন। তারপর তাঁর মেয়ে ও দেহরক্ষীকে সঙ্গে নিয়ে সকাল ৫টা ৪ মিনিটে একটি সাদা রঙের স্করপিও গাড়িতে চেপে বেরিয়ে যান মন্ত্রী।এসএসসি (SSC) দুর্নীতিতে নাম জড়ানোর পরই মেয়েকে নিয়ে পদাতিক এক্সপ্রেসে (Padatik Express) উঠেছিলেন শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারী (Paresh Adhikary)। মঙ্গলবার রাতেই রওনা দিয়েছিলেন কলকাতার উদ্দেশ্যে। কিন্তু, মাঝপথে আচমকাই নাটকীয় মোড়। বুধবার সকাল ৬টা বেজে ৪৫ মিনিট নাগাদ পদাতিক এক্সপ্রেস শিয়ালদা স্টেশনে ঢোকে। কিন্তু, ট্রেন থেকে নামতে দেখা যায়নি শিক্ষা প্রতিমন্ত্রীকে। তারপর থেকেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করে পরেশ অধিকারী গেলেন কোথায়?

    মঙ্গলবার রাতে ট্রেনে ওঠার আগে অবশ্য সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন পরেশ অধিকারী (Paresh Adhikary)। তিনি বলেন, "আমি এই বিষয়ে কিছু জানি না। জানতে পেরেছি যে হাইকোর্ট একটা রায় দিয়েছে। সেই কারণে আমরা কলকাতায় যাচ্ছি। চাকরির বিষয় নিয়ে জানতে চেয়েছে। আর বেশি কিছু আমি জানি না। যেহেতু বিষয়টি কোর্টের সেই কারণে এই বিষয় নিয়ে আমি কিছুই বলব না। তখন আমি মন্ত্রী বা বিধায়ক কিছুই ছিলাম না। আমি এখন উত্তরবঙ্গে রয়েছি তাহলে রাত ৮টার সময় নিজাম প্যালেসে যাব কেমন করে?" শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারীকে মন্ত্রিত্ব থেকে সরিয়ে দিতে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়-মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সুপারিশ করেছেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ''যেখানে একজন মন্ত্রীর নাম এমন দুর্নীতিতে জড়িয়ে যায়। সেখানে সমাজকে শুদ্ধ এবং স্বচ্ছ করতে, মানুষের মনে ভরসা যোগাতে মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যপালের এমন মন্ত্রীকে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া উচিত ।''
  • Link to this news (এই সময়)