• পারিবারিক বিবাদ চরমে উঠতেই বিপত্তি, ভাইয়ের গুলিতে মৃত্যু দাদার
    এই সময় | ১৯ মে ২০২২
  • পারিবারিক বিবাদের জেরে নিজের দাদাকে গুলি করে খুনের অভিযোগ উঠল ভাইয়ের বিরুদ্ধে। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি আসানসোল পুরনিগমের ১২ নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্গত জামুরিয়া থানার শ্রীপুর এলাকায়। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে ছুটে আসে পুলিশ৷ সেখানে পরিবারের তরফে অভিযোগ দায়ের করা হয়৷ অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্ত ভাইকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে যে, পাশের একটি দোকান থেকে আগ্নেয়াস্ত্র এনে বড় ভাইকে গুলি করে ভোট ভাই৷ ধৃতের নাম হায়দার আনসারি৷ এই ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে এলাকায়৷

    স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বুধবার দুপুরে হঠাৎই দু’ভাইয়ের মধ্যে বচসা শুরু হয়৷ বচসা চরম আকার ধারণ করে৷ ঝগড়া চলাকালীন ছোট ভাই হায়দার আনসারি বড় ভাই সফদার আনসারি ওরফে বাব্বনকে (৩২) গুলি করে বলে অভিযোগ। সরাসরি গুলি মাথায় গিয়ে লাগে। পরিবারের অন্যান্য লোকেরা এবং প্রতিবেশীরা সফদারকে তড়িঘড়ি আসানসোল জেলা হাসপাতালে নিয়ে যান৷ কিন্তু সেখানে তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। অভিযোগ পেয়েই ঘটনাস্থলে ছুটে আসে পুলিশ৷ সেখানে অভিযুক্ত হায়দার আনসারিকে গ্রেফতার করে তারা। তার কাছ উদ্ধার হয়েছে আগ্নেয়াস্ত্র। প্রতিবেশীদের অভিযোগ, দু’ভাইয়ের মধ্যে পারিবারিক বিবাদ আগে থেকেই ছিল। সেই বিবাদ এদিন চরমে ওঠে। আর বচসার মাঝেই ছোট ভাই হঠাৎ করে গুলি চালিয়ে দেয় দাদার মাথা লক্ষ্য করে। ঘটনাস্থলে লুটিয়ে পড়েন সফদার। জেলা হাসপাতালে আনার পর তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়৷

    হাসপাতালে দাঁড়িয়ে মৃতের কাকা মহম্মদ মুজাম্মিল বলেন, ‘‘দুই ভাইয়ের মধ্যে ঝামেলা হয়েছে৷ সেসময় আমরা ছিলাম না৷ কাজে গিয়েছিলাম৷ সেখানে খবর পাই, একজন আর একজনকে গুলি করে দিয়েছে৷ খবর পেয়েই ছুটে আসি৷ যদিও ততক্ষণে সব শেষ হয়ে গিয়েছে৷’’ সেসময় হাসপাতালে উপস্থিত ১১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আরিফ আলি বলেন, ‘‘দুই ভাইয়ের মধ্যে ঝগড়া হয়৷ কোথা থেকে আগ্নেয়াস্ত্র এনে এক ভাই আর এক ভাইকে গুলি করে দেয়৷’’ ঘটনার খবর পেয়ে ওই বাড়িতে যায় পুলিশ৷ সেখানে আসানসোল দুর্গাপুর পুলিশ কমিশনারেটের ACP তথাগত পাণ্ডে বলেন, "আমরা খবর পেয়েছিলাম যে, দু’ভাইয়ের মধ্যে পারবারিক বিবাদ হয়েছে৷ সেখানে এক ভাই পাশের দোকান থেকে আগ্নেয়াস্ত্র এনে বড় ভাইকে গুলি করে। অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার কাছ থেকে অস্ত্র উদ্ধার হয়েছে৷ দু’-তিন রাউন্ড গুলি চালিয়েছিল সে৷ আমরা অভিযোগ পেলাম৷ কীভাবে সে আগ্নেয়াস্ত্র পেল, সে বিষয়টিও তদন্ত করে খতিয়ে দেখছি আমরা।"
  • Link to this news (এই সময়)