• হুগলির তৃণমূল নেতার অশালীন ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায়! রাজনৈতিক বিতর্ক
    এই সময় | ২৬ জুন ২০২২
  • বিতর্কে জড়ালেন এবার হুগলির (Hooghly) শ্রীরামপুর সাংগঠনিক জেলা তৃণমূল যুব সভানেত্রীর স্বামী তথা বলাগড়ের সিজা কামালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ-প্রধান। অভিযোগ, বলাগড়ের সিজা কামালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ প্রধান অরিজিৎ দাস ওই পঞ্চায়েতেরই এক তৃণমূল সদস্যার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছেন। তাঁদের ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে উঠেছে। যদিও ওই ছবির সত্যতা যাচাই করেনি ‘এই সময় ডিজিটাল’। তবে বদনাম ছড়ানোর জন্যই কেউ চক্রান্ত করে ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন হুগলির শ্রীরামপুর সাংগঠনিক জেলা তৃণমূল যুব সভানেত্রী রুনা খাতুন। গোটা বিষয়টি নিয়ে সাইবার ক্রাইমে অভিযোগ জানানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

    জানা গিয়েছে, হুগলির শ্রীরামপুর সাংগঠনিক জেলা তৃণমূল যুব সভানেত্রী রুনা খাতুনের স্বামী অরিজিৎ দাস বলাগড়ের (Balagarh) সিজা কামালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ-প্রধান। অরিজিৎ দাসের সঙ্গে ওই পঞ্চায়েতেরই এক তৃণমূল সদস্যার ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবি বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। যদিও ছবিটি প্রকাশ্যে আসা মাত্রই কে সেটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছে জানতে রুনা খাতুন ও অরিজিৎ দাসের তরফে সাইবার ক্রাইম থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। ছবিটি ফেক বলেও দাবি তাঁদের। যদিও সংবাদমাধ্যমের সামনে এই বিষয়ে মুখ খোলেননি অরিজিৎ দাস এবং অভিযুক্ত পঞ্চায়েত সদস্যা।

    তবে গোটা ঘটনাটি চক্রান্ত বলে দাবি জানিয়েছেন রুনা খাতুন। তাঁর দাবি, ফেক ছবি তৈরি করে তাঁকে এবং তাঁর স্বামীকে বদনামের উদ্দেশ্যে এটা করা হয়েছে। এর আগেও তাঁর বিরুদ্ধে অনেক কিছু করা হয়েছে বলেও অভিযোগ রুনা খাতুনের। যারা তাঁকে সহ্য করতে পারেন না, তাঁরাই চক্রান্ত করে এসব করছেন তিনি। তবে দলেরই কেউ নাকি অন্য কেউ, কারা এই চক্রান্ত করছে? এব্যাপারে স্পষ্ট কোনও জবাব দেননি রুনা খাতুন। তিনি বলেন, “কারওর নাম বলব না। গোটা ঘটনাটি পুলিশকে জানানো হয়েছে।”

    এটা তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দলের ফল বলে কটাক্ষ করেছেন হুগলি (Hooghly) জেলা BJP-র জেলা সাধারণ সম্পাদক সুরেশ সাউ। তিনি বলেন, “তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ফলে এসব হচ্ছে। আগেও দেখা গিয়েছে, তৃণমূলের এমন অনেক ছবি। এখন BJP-র ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছে। BJP কোনদিন এসবের মধ্যে থাকে না। এর আগেও অনেক নেতার এরকম ছবি দেখেছি। এরা তো চুনোপুঁটি।”

    Hooghly News: হিমালয়ের অন্যতম দুর্গম শৃঙ্গ জয় করে ঘরে ফিরলেন চুঁচুড়ার যুবক

    অন্যদিকে, তৃণমূল জেলা সভাপতি স্নেহাশিস চক্রবর্তী বলেন, “BJP বিভিন্ন সময়ে মিথ্যা ভিডিয়ো তৈরি করে সামাজিক মাধ্যমে ছড়ায়। কুৎসা অপপ্রচারই BJP-র কাজ। যে ছবি ছেড়েছে তা আমি দেখিনি। তবে জানতে পেরেছি, ছবিটা এডিট করা হয়েছে। এই ভাবে কুৎসা ছড়ানো হচ্ছে। ইতিমধ্যেই সাইবার ক্রাইমে অভিযোগ জানানো হয়েছে। প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি এর উৎস খুঁজে বের করতে।”
  • Link to this news (এই সময়)